বাংলাদেশের রেলওয়ের যাত্রীসেবা সহজ করার লক্ষ্যে মোবাইল অ্যাপ রেল সেবা (Rail Sheba) চালু হয়েছে। এই মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে সহজেই ট্রেনের টিকেট ক্রয় করা সহ ট্রেনের রুট, টিকেটের প্রাপ্যতা, বিভিন্ন স্টেশনের ভাড়া, সময়সূচী সহ মোট ১১ ধরণের সুযোগ সুবিধা পাওয়া যাবে।

ট্রেনের মোট টিকেটের ৫০ শতাংশ টিকেট এখন থেকে পাওয়া যাবে মেসেজ বা অনলাইনের মাধ্যমে। অনলাইন মাধ্যমের মধ্যে কিছু পাওয়া যাবে বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্রেনের টিকিং বুকিং করার ওয়েবসাইট থেকে ও কিছু পাওয়া যাবে এই রেল সেবা অ্যাপ থেকে। রেলসেবা অ্যাপটি সব ধরনের অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ও আইওএস ভিত্তিক মোবাইল ফোনে ব্যবহার করা যাবে। অ্যাপটির মাধ্যমে প্রতি ঘন্টায় ১৫০০০ অর্থাৎ মিনিটে ২৫০ টিকেট কাটা যাবে। ভবিষ্যতে সক্ষমতা আরও বৃদ্ধি করা হবে।

রেলসেবা আপ্যের সেবাসমূহ

রেলসেবা অ্যাপ থেকে যে সকল সেবাসমূহ পাওয়া যায় তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য গুলো গুলো; বাংলাদেশের সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট ক্রয় করা যাবে, টিকিট খালি আছে কিনা সেই সম্পর্কে জানা যাবে, কোন গন্তব্যে কত ভাড়া জানা যাবে, একটি ট্রেনের কি রুট তা জানা যাবে, ট্রেনের সময়সূচি জানা যাবে, কোন ট্রেন কোথায় বিরতি দিবে সেই স্টেশনের নাম ও সময়সূচি, আপনার ভ্রমণ হিস্ট্রি, কোচ ভিউ, পছন্দমত সিট চয়েজ করা যাবে, খাবারের মূল্য ও মেনু জানা যাবে, খাবার অর্ডার করা যাবে। এ ছাড়া অন্যান্য আরও তথ্যমূলক সেবার মধ্যে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনের নম্বর সহ আরো বেশ কিছু ফিচার রয়েছে এই মোবাইল অ্যাাপে।

অ্যাপ থেকে টিকেট কাটার উপায়

সঠিকভাবে অ্যাকাউন্ট খোলা শেষে অ্যাপটির সাইন ইন (Sign) অপশনের মাধ্যমে আপনার মোবাইল নাম্বার ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন। অ্যাকাউন্টে ঢুকার পর বিভিন্ন সুবিধা গুলো দেখতে পারবেন। সেখানে আছে টিকেট ক্রয়, তথ্য অনুসন্ধান, হিস্ট্রি, ফুড, ট্রেন ট্রেকিং, কোচ ভিউ, কমেন্ট, রেটিং সহ আরও কিছু অপশন।

রেলসেবা অ্যাপ ডাউনলোড করুনঃ এন্ড্রয়েড ভার্সন

রেলসেবা রেজিস্ট্রেশন
রেলসেবা নিবন্ধন পেইজ

অ্যাপের মাধ্যমে অনলাইনে ট্রেন টিকিট কাটার জন্য প্লে-স্টোরে থাকা এই অ্যাপটি ডাউনলোড করতে হবে। এরপর সাইন-আপ অপশনের মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। তবে যারা ইতোপূর্বে মোবাইল নাম্বার দিয়ে অথবা অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করেছেন তাদের আগের পাসওয়ার্ড দিয়েই এই অ্যাপে ঢুকতে হবে। আগে একাউন্ট করা না সাইন আপ (Sign Up) অপশনে গিয়ে সেখানে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য যেমন নাম, মোবাইল নাম্বার, ইমেইল, জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার বা জন্ম নিবন্ধনের নাম্বার, পাসওয়ার্ড ইত্যাদি দিয়ে অ্যাকাউন্ট করতে হবে প্রথমে।

লগইন পেইজ

আপনি আপনার যাত্রার তারিখের টিকেট ১০ দিন আগে থেকেই কাটতে পারবেন। টিকেট কিনতে Purchase অপশনে যান। সেখানে কোন স্টেশন থেকে (From Station) যাবেন নির্বাচন করুন, কোন গন্তব্যে (To Station) যাবেন নির্বাচন করুন, কত তারিখ (Journey Date) যাবেন তা নির্বাচন করুন, তারপর সার্চ ট্রেইন অপশনে ক্লিক করলে আপনার গন্তব্যের সব ট্রেনের তথ্য দেখাবে। সেখান থেকে যে ট্রেনে যেতে চান সেই ট্রেনের আসনের ধরণ (Class), কতজন যাবেন (Adult, Child) নির্বাচন করুন।

হোম পেইজ

তারপর একটা পেইজ আসবে আপনার ট্রেন, সিট, ভাড়া সহ বিস্তারিত তথ্যের। সব রিভিউ করে যদি সব ঠিক থাকে সেখানে আপনার জেন্ডার সিলেট করে পেমেন্ট (Pay Now) করতে হবে। বর্তমানে চারটি উপায়ে পেমেন্ট করা যায়। আপনি ভিসা কার্ড, মাস্টারকার্ড, এমেক্স কার্ড বা বিকাশের মাধ্যমে টিকেটের মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন।

পেমেন্ট করার পর আপনার টিকেটের বিস্তারিত তথ্য দেখাবে। সেই তথ্য সংরক্ষণ করুন। স্টেশনে সেই তথ্য দেখালে আপনাকে টিকেট প্রিন্ট করে দিবে। একজন সর্বোচ্চ চারটি টিকিট কাটতে পারবেন।

ওয়েবসাইট থেকে টিকেট কেনার উপায়

আপনি চাইলে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড ছাড়াও বাংলাদেশ রেলওয়ের অনলাইন টিকেট কেনার ওয়েবসাইট থেকেও একই পদ্ধতিতে টিকেট ক্রয় করতে পারবেন। ওয়েবসাইটের ঠিকানাঃ www.esheba.cnsbd.com

অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট

অনলাইনে যে কোন ট্রেনের টিকেট ১০ দিন আগে অগ্রিম পাওয়া যায় । যেমন উদাহরণ হিসেবে বলা যায় ১০ তারিখের টিকেট আপনি ১ তারিখ কিনে নিতে পারবেন। তাহলে যা দাড়াচ্ছে, আপনি ১ তারিখে ঐদিন সহ ২ থেকে ১০ তারিখের যে কোন দিনের টিকেট অগ্রিম কেটে নিতে পারবেন।

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।