নদী ও পানিসম্পদ রক্ষায় জনসচেতনতা বৃদ্ধির উদ্দেশ্য নিয়ে ২০১৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়ায় কুয়াকাটা-ঢাকা মহাসড়কের পাশে একটি দ্বিতল ভবনে দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম পানি জাদুঘর (Water Museum) যাত্রা শুরু করে। একশন এইড নামের এনজিও কতৃক প্রতিষ্ঠিত এই জাদুঘরে বাংলাদেশের নদী-কেন্দ্রিক মানুষের জীবন-জীবিকা ও সংস্কৃতি, বাংলাদেশের সকল হারিয়ে যাওয়া ও বর্তমান নদ-নদীর পরিচিতি, ছবি, নদীর ইতিহাস এবং নদীর ভবিষ্যৎ সম্পর্কিত তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে।

পানি জাদুঘরে যমুনা, বুড়িগঙ্গা, পদ্মা, আন্ধারমানিক, মেঘনা সহ ৯০টির অধিক নদীর পানির নমুনা সংরক্ষিত আছে। আর জাদুঘরের সামনে নদী মরে যাওয়ার প্রতীক হিসাবে অর্ধেক বালুতে ডোবানো অবস্থায় একটি নৌকা রাখা আছে, যা একটি নদী শুকিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে দেশের পরিবেশের উপর নদীর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকাকে নির্দেশ করছে। বর্তমানে জাদুঘরটি কলাপাড়া উপকূলীয় জনকল্যাণ সমিতি কতৃক পরিচালিত হচ্ছে।

প্রবেশ ফি ও সময়সূচী

পানি জাদুঘর রবিবার ছাড়া সপ্তাহের ৬ দিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকে। জাদুঘরটি পরিদর্শন করতে স্কুলের শিক্ষার্থীদের জনপ্রতি ১০ টাকা, পটুয়াখালী জেলার বসবাসকারীদের জনপ্রতি ২০ টাকা এবং অন্যান্য পর্যটকদের জনপ্রতি ১০০ টাকা প্রবেশ ফি প্রদান করতে হয়।

যোগাযোগ
পাখিমারা বাজার, কলাপাড়া, পটুয়াখালী
ফোন: +88028837796
মোবাইল: 01712-950319
ওয়েবসাইট: watermuseum.net
ফেইসবুক: www.facebook.com/Water-Museum

কিভাবে যাবেন

নৌপথে ঢাকার সদরঘট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে লঞ্চে চড়ে পটুয়াখালীর আমতলী উপজেলায় পৌঁছে সেখান থেকে বাস অথবা মোটরসাইকেলে পানি জাদুঘর যাওয়া যায়। এছাড়া ঢাকার সদরঘাট থেকে লঞ্চে বরিশাল হয়ে বাস বা মাইক্রোবাস ভাড়া করে পানি জাদুঘর আসতে পারবেন।

ঢাকার গাবতলী ও সায়দাবাদ থেকে কুয়াকাটাগামী সাকুরা পরিবহন, ঈগল পরিবহনের বাসে সরাসরি কলাপাড়ার পাখিমারায় অবস্থিত পানি জাদুঘরের কাছে নামতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

কলাপাড়াতে হোটেল কুয়াকাটা, হোটেল বনানী প্যালেস, হোটেল নীলাঞ্জনা, কুয়াকাটা গেস্ট হাউজ সহ বেশকিছু ভালো মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে।

ফিচার ইমেজ: পানি জাদুঘর ফেইসবুক পেইজ

ম্যাপে পানি জাদুঘর

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।