১৯২১ সালের ১ জুলাই রাজধানী ঢাকার শাহবাগে প্রায় ৬০০ একর জমির উপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (University of Dhaka) যাত্রা শুরু করে। বাংলাদেশের প্রথম প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্ববিদ্যালয়ে তৎকালীন সময়ে ৩ টি ফ্যাকাল্টি, ১২ টি বিভাগ, ৬০ জন শিক্ষক এবং ৮৭৭ জন শিক্ষার্থী ছিল। বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৩ টি ফ্যাকাল্টি, ৮৩ টি বিভাগ এবং ১২ টি ইনস্টিটিউটে প্রায় ৩৮,০০০ শিক্ষার্থী এবং ১,৮০৫ জন শিক্ষক রয়েছে৷ প্রতিষ্ঠার পর থেকেই প্রগতিশীলতার ধারক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তারুণ্যের উন্মত্ততা বহু ঐতিহাসিক ঘটনাকে জন্ম দিয়েছে। মেধা ও মননে বিকশিত বিদ্যার্থীদের পদচারনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় খ্যাত হয়ে উঠে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড হিসাবে।

কি ঘুরে দেখবেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত বাংলাদেশের গৌরবোজ্জল অধ্যায়ের সাক্ষী বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থাপনার মধ্যে রয়েছে কার্জন হল, কলা ভবন, কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি, তিন নেতার মাজার, চারুকলা ইন্সটিটিউট, সিনেট ভবন, বকুল তলা, কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবর, বাংলা একাডেমি, শহীদ মিনার, ডাকসু ভবন, টিএসসি, অপরাজেয় বাংলা ও রাজু ভাস্কর্য, দোয়েল চত্ত্বর, মধুর কেন্টিন, হাকিম চত্ত্বর, মুক্তি ও গণতন্ত্র তোড়ন। এছাড়া আরও আছে অসংখ্য বৃক্ষ, পুকুর, ফুলের বাগান এবং স্থাপত্য শিল্পের অনন্য নিদর্শন হয়ে থাকার মত সুউচ্চ দালান।

কিভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার বিভিন্ন গণপরিবহনের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব বাস সার্ভিস চালু আছে। আপনি পছন্দমত যানবাহনে সহজেই চলে আসতে পারবেন বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায়।

কোথায় খাবেন

খাবারের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মধুর ক্যান্টিন, টি.এস.সি, ডাকসু, হাকিম চত্বর এবং সেন্ট্রাল লাইব্রেরির সামনে থেকে লাল চা, সমুচা, চপ, সিঙ্গারা, চিকেন প্যাটিস থেকে শুরু করে ভাত, ডাল, আলুভর্তা, মুরগির মাংসের তরকারি, মুরগি ও ডিম খিচুড়ি এবং তেহারি খেতে পারবেন।

ফিচার ইমেজ: শিকদার মাহমুদ সাইদ

ম্যাপে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।