ঠাকুরপুর জামে মসজিদ (Thakurpur Jame Mosque) ঐতিহ্য আর নান্দ্যনিকতায় চুয়াডাঙ্গা জেলার একটি অন্যতম প্রাচীন ইসলামিক স্থাপত্য নিদর্শন। চুয়াডাঙ্গা থেকে ২ কিলোমিটার দূরে চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদহ সড়কের পার্শ্ববর্তী ঠাকুরপুর গ্রামে অবস্থিত ঠাকুরপুর জামে মসজিদটি বর্তমানে পীরগঞ্জ জামে মসজিদ হিসেবে সুপরিচিত। মসজিদের মূল অংশ নির্মাণের ব্যাপারে প্রকৃত তথ্য পাওয়া না গেলেও স্থানীয় প্রবীণদের মতে, ১৬৯৮ সালে পশ্চিমবঙ্গ থেকে সাধক পুরুষ হযরত আফু শাহ্‌ ইসলাম ধর্ম প্রচারের উদ্দ্যেশ্যে ঠাকুরপুরে এসে খানকা স্থাপন করেন। তিনি জীনদের সাহায্যে এক রাতের মধ্যেই মসজিদটি নির্মাণ করেন। একারণে স্থানীয় অনেকে এই মসজিদটি “জিনের মসজিদ” হিসেবে অভিহিত করেন।

প্রায় ৩০ বিঘা জায়গার উপর স্থাপিত ঠাকুরপুর জামে মসজিদে প্রবেশ করলেই আধুনিক স্থাপত্যশৈলীতে নির্মিত একটি প্রবেশ তোরণ চোখে পড়ে। আর মসজিদের পিছনে রয়েছে একটি বড় পুকুর, সারি সারি নারিকেল গাছ এবং কবরস্থান। লোকমুখে আছে, প্রতি বৃহস্পতিবার এই মসজিদে জীনেরা নামায পড়ে ও মানুষের রেখে যাওয়া তেল বা পানি দোয়া পড়ে ফুঁ দিয়ে যায়। স্থানীয়দের বিশ্বাস এই পানি বা তেল পরা তাদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধানে সাহায্য করে। মূল কাঠামো ঠিক রেখে বিভিন্ন সময় মসজিদের সংস্কার করা হয়েছে এবং প্রায় ৩০০ বছরের ঐতিহ্য অনুযায়ী প্রতি বছর বাংলা মাসের ১২ ফাল্গুন এই মসজিদ প্রাঙ্গণে বার্ষিক ওরশের আয়োজন করা হয়ে থাকে। দূর দূরান্ত থেকে অসংখ্য দর্শনার্থী ঐতিহ্যবাহী এই মসজিদটি দেখতে আসেন।

কিভাবে যাবেন

সড়কপথে ঢাকার গাবতলী বা সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে শ্যামলী, পূর্বাশা, দর্শনা ডিলাক্স, চুয়াডাঙ্গা এক্সপ্রেস বা রয়েল এক্সপ্রেসে চুয়াডাঙ্গায় যেতে পারবেন। রেলপথে চিত্রা বা সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে ঢাকা থেকে চুয়াডাঙ্গা যাওয়া যায়। চুয়াডাঙ্গা জেলা শহর থেকে ইজিবাইক/রিকশায় চড়ে ঠাকুরপুর জামে মসজিদ দেখতে যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

চুয়াডাঙ্গায় সানড্রিয়াল হোটেল, হোটেল অবকাশ, হোটেল আল-আমিন, হোটেল আল মেরাজ, অন্তরাজ আবাসিক হোটেল, প্রিন্স আবাসিক হোটেল, হোটেল সোনার বাংলা ও হোটেল সুরমা প্রভৃতি বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে।

কোথায় খাবেন

চুয়াডাঙ্গা শহরে কলেজ রোড সংলগ্ন কয়েকটি উন্নতমানের রেস্টুরেন্ট ও খাবারের দোকান আছে। সুযোগ থাকলে অবশ্যই চুয়াডাঙ্গার কালিপদের মিষ্টি খেতে ভুলবেন না।

চুয়াডাঙ্গার দর্শনীয় স্থান

চুয়াডাঙ্গার অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে দর্শনা, মেহেরুন শিশু পার্ক, পুলিশ পার্ক, আট কবর ও ঘোলদাড়ী শাহী মসজিদ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

ফিচার ইমেজ: এ এস এম সায়েম

ম্যাপে ঠাকুরপুর জামে মসজিদ

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।