নড়াইল জেলার লোহগড়া উপজেলার রামপুরে স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পট (Shopnobithi Picnic Spots) গড়ে তোলা হয়েছে। প্রায় ১২ একর জায়গার জুড়ে স্থাপিত এই বিনোদন কেন্দ্রটি ইতিমধ্যে দক্ষিণবঙ্গের সবচেয়ে সুন্দর পিকনিক স্পট হিসাবে সুনাম অর্জন করেছে। স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পটের কাছেই রয়েছে নিরিবিলি পিকনিক স্পট নামে আরও একটি পারিবারিক বিনোদন কেন্দ্র। অনেকের কাছে স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পট নিরিবিলি পিকনিক স্পট-২ নামে পরিচিত।

সবুজে ঢাকা স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পটে আছে বিভিন্ন আকর্ষনীয় রাইড, মিনি চিড়িয়াখানা, মনোমুগ্ধকর ভাস্কর্য, রেস্তোরাঁ, বোট রাইডিং এবং কার পার্কিং ব্যবস্থা। প্রতিদিন অসংখ্য দর্শনার্থী চিত্তবিনোদনের উদ্দেশ্যে নড়াইল জেলা শহর থেকে প্রায় ১৪ কিলোমিটার দূরের এই স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পট ঘুরতে আসেন।

কিভাবে যাবেন

নড়াইল শহর থেকে বাস/সিএনজি/অটোরিকশায় চড়ে স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পট যেতে পারবেন। রাজধানী ঢাকা থেকে মাওয়া এবং কালনা ফেরীঘাট হয়ে লোহাগড়া পেরিয়ে ১ কিলোমিটার সামনে এগুলেই স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পটের প্রবেশ পথ দেখতে পাবেন।

ঢাকার গাবতলী থেকে নড়াইলগামী বাসের মধ্যে হানিফ এন্টারপ্রাইজ, ঈগল পরিবহন, সাদ সুপার ডিলাক্স পরিবহন উল্লেখ্যযোগ্য। এসব বাসে করে নড়াইল যেতে জনপ্রতি ৩৫০ থেকে ৪৫০ টাকা ভাড়া লাগে।

কোথায় থাকবেন

স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পটে আবাসিক সুবিধা না থাকলেও কাছে অবস্থিত নিরিবিলি পিকনিক স্পটে রাত্রিযাপনের সুযোগ রয়েছে।

ফিচার ইমেজ: তামান্না রেজা

ম্যাপে স্বপ্নবীথি পিকনিক স্পট

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।