বান্দরবান জেলা সদর থেকে ৬৬ কিলোমিটার এবং রুমা বাজার থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে সাঙ্গু নদীর পাড়ে ঋজুক ঝর্ণা (Rijuk Waterfall) অবস্থিত। নদীপথে রুমা বাজার থেকে থানছি যাওয়ার সময় এই চির তরুণ ঋজুক ঝর্ণার দর্শন মিলে। মার্মা ভাষায় এই ঝর্ণার নাম রী স্বং স্বং। প্রায় ৩০০ ফুট উচু পাহাড় হতে সারা বছর জলধারা বয়ে চলে। আর বর্ষায় স্রোতের তোড় এত বৃদ্ধি পায় যে তখন জলপ্রপাতের কাছে ঘেঁষতে বড় ইঞ্জিনের নৌকা নিয়েও রীতিমত হিমশিম খেতে হয়। বছরজুড়ে বহমান জলের ধারা আর চারপাশের আদিম বুনো সবুজের সৌন্দর্য ঋজুক ঝর্ণাকে দিয়েছে প্রকৃতির এক অপার্থিব নির্মলতা।

শুধুমাত্র ঋজুক নয়, সৌন্দর্যের বেলায় সাঙ্গুও কম যায় না। বর্ষাকাল ছাড়া বছরের অন্য সময় সাঙ্গু নদীতে পানি কম থাকে। পরিস্কার টলটলে পানির নিচে বালি ও ছোট ছোট নুড়িপাথরের রাজত্ব পরিষ্কার দেখা যায়। সাঙ্গুর বাকে বাকে কোথাও কোথাও পাহাড় ভেদ করে বেড়িয়ে আসে ফসলের জমি। ঋজুকের বিপরীত পাশে মারমাদের একটা পাড়া রয়েছে। এই পাড়ার নাম নতুন ঋজুকপাড়া। আবার পাহাড়ের উপর বমদের পাড়াড় নাম ঋজুকপাড়া। হাতে সময় থাকলে ঋজুক ঝর্ণা দেখে আদিবাসী জীবনধারার সাথে পরিচিত হতে পারেন। মারমারা আতিথেয়তা ও আন্তরিকতায় একেবারে তুলনাহীন।

কিভাবে যাবেন

ঋজুক ঝর্ণা দেখতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই প্রথমে বান্দরবান শহর আসতে হবে। রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে শ্যামলি, হানিফ, ইউনিক, এস আলম, ডলফিন ইত্যাদি বেশকিছু পরিবহনের বাসে বান্দরবান যেতে পারবেন। ঢাকা থেকে বাসে বান্দরবান যেতে সময় লাগে ৮-১০ ঘন্টা। বান্দরবান শহর পৌঁছে লোকাল বাস, জীপ/চাঁন্দের গাড়িতে চড়ে চলে যান রুমা বাজার। রুমা বাজার থেকে পায়ে হেটে ট্রাকিং করে কিংবা ইঞ্জিন চালিত নৌকা ভাড়া নিয়ে ঋজুক ঝর্ণা দেখতে যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

রুমা বাজারে হোটেল হিলটনে রাত্রিযাপন করতে পারেন। আর বান্দরবান শহরে হলিডে ইন রিসোর্ট, হোটেল ফোর স্টার, হিলসাইড রিসোর্ট, হোটেল রিভার ভিউ, হোটেল থ্রি স্টার ইত্যাদি আবাসিক হোটেল রয়েছে।

ঋজুক ঝর্ণা ভ্রমণ পরামর্শ

  • হাফ প্যান্ট, স্যান্ডেল/ট্রাকিং সু, ক্যাপ গামছা, রেইন কোট, ফাস্ট এইড ইত্যাদি সাথে পরিবহন করুন।
  • রুমা বাজার থেকে নিবন্ধিত গাইড নিন। আর গাইডের সাথে আগে থেকেই খরচের বেপারে সবকিছু আলোচনা করে নিন।

ফিচার ইমেজ: আসাদুজ্জামান আরশ

ম্যাপে ঋজুক ঝর্ণা

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।