ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈল উপজেলার কুলিক নদীর তীরে রাজা টংকনাথের রাজবাড়ি অবস্থিত। ঠাকুরগাঁও সদর হতে রাজা টংকনাথের রাজবাড়িটি (Raja Tonkonath’s Palace) ৪০ কিলোমিটার এবং রাণীশংকৈল উপজেলা হতে ১.৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। কথিত আছে, রাজা টংকনাথের পিতা বুদ্ধিনাথ চৌধুরী ছিলেন মৈথিলি ব্রাহ্মণ। তিনি কাতিহারে ঘোষ বা গোয়ালা বংশীয় জমিদারের শ্যামরাইয়ের মন্দিরের সেবায়েতে নিযুক্ত ছিলেন। নিঃসন্তান গোয়ালা জমিদার কাশীবাসে যাওয়ার আগে তাম্রপাতে দলিল করে জমিদারি সেবায়েতের তত্ত্বাবধানে রেখে যান। জমিদার আর ফিরে না আসায় দলিল মোতাবেক বুদ্ধিনাথ চৌধুরী জমিদারি লাভ করেন। ঊনবিংশ শতাব্দীতে প্রায় ১০ একর জমির উপর বুদ্ধিনাথ চৌধুরী জমিদার বাড়ির নির্মাণ কাজ শুরু করলেও রাজা টংকনাথের হাতে নির্মাণ কাজ শেষ হয়।

১৯২৫ সালে ব্রিটিশ সরকার টংকনাথকে চৌধুরী উপাধিতে ভূষিত করেন এবং দিনাজপুরের মহারাজা গিরিজনাথ রায়ের নিকট থেকে রাজা উপাধি লাভ করেন। বর্তমানে প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত রাজবাড়ির পশ্চিমদিকে সিংহদরজার চূড়ায় দিক নির্দেশক লৌহদন্ডে S.N.E.W চিহ্ন অঙ্কিত রয়েছে। রাজা টংকনাথের রাজবাড়িতে রয়েছে কাছারিবাড়ি, দুটি পুকুর, ২০০ মিটার দূরে রামচন্দ্র (জয়কালী) মন্দির। জানা যায় রামচন্দ্র মন্দিরটি রাজা টংকনাথের রাজবাড়ির চেয়েও অনেক প্রাচীন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে মন্দির অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে বর্তমানে প্রায় ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে সড়ক ও রেলপথে ঠাকুরগাঁও আসা যায়। সড়ক পথে ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁও এর পথে বেশকিছু বাস সার্ভিস চলাচল করে তাদের মধ্যে কর্ণফুলী পরিবহন (01674-805164), হানিফ এন্টারপ্রাইজ, নাবিল পরিবহন, বাবলু এন্টারপ্রাইজ এবং কেয়া পরিবহন অন্যতম। কর্ণফুলী পরিবহনের জনপ্রতি টিকেটের ভাড়া ৫০০ টাকা।
এছাড়া ঢাকা-লালমনিরহাট ও ঠাকুরগাঁও রুটে লালমনি আন্ত:নগর ট্রেন রবিবার ব্যতীত সাপ্তাহের অন্য ৬ দিন ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট থেকে রাত ১০ টায় ঠাকুরগাঁও এর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ঠাকুরগাঁও যেতে ট্রেনের টিকেট কাটতে শ্রেণীভেদে ৪০০ থেকে ৯৫০ টাকা লাগে।

ঠাকুরগাঁও থেকে বাস বা সিএনজিযোগে রাণীশংকৈল বাস স্ট্যান্ড এসে ভ্যান বা মোটরসাইকেল দিয়ে বাচোর ইউনিয়ন পরিষদের পুরাতন ভবনের পাশে অবস্থিত রাজা টংকনাথের রাজবাড়ি দেখতে আসতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

ঠাকুরগাঁও এ বেশকিছু সরকারি ডাকবাংলো বা রেস্ট হাউস রয়েছে। কতৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে এসব রেস্ট হাউসে রাত্রিযাপন করতে পারবেন। আবাসিক হোটেলের মধ্যে হোটেল সালাম ইন্টার ন্যাশনাল, প্রাইম ইন্টারন্যাশনাল, হোটেল শাহ্ জালাল, হোটেল সাদেক উল্লেখযোগ্য।

কোথায় খাবেন

রাণীশংকৈলে মৌচাক রেস্টুরেন্টে খেতে পারেন। এছাড়া খাবারের প্রাত্যহিক চাহিদা পূরণের জন্য এখানে সাধারণ মানের হোটেল ও রেস্তোরাঁ পাবেন। তবে আমের সিজনে ঠাকুরগাঁও গেলে অবশ্যই বিখ্যাত সূর্যপুরী আম খেয়ে আসবেন।

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।