লক্ষ্মীপুর জেলা থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে রায়পুর উপজেলায় বাংলাদেশের বৃহত্তম ও এশিয়া মহাদেশের মধ্যে অন্যতম রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (Raipur Fish Hatchery and Training Centre) অবস্থিত। ১৯৭৯ সালে দেশের প্রধান খালগুলোতে মাছের পোনা ও রেনু চাষ এবং সরবারহের লক্ষ্যে রায়পুরে এই মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রটি স্থাপন করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৮২ সালে রায়পুর মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রে কৃত্রিম মৎস্য প্রজনন শুরু করা হয় এবং ১৯৯২ সাল থেকে কেন্দ্রটি বানিজ্যকভাবে মাছ উৎপাদন শুরু করে। ১৯৭৯-১৯৯২ সাল পর্যন্ত এই কেন্দ্রটি ড্যানিশ উন্নয়ন সংস্থা ড্যানিডা কর্তৃক নোয়াখালী আঞ্চলিক উন্নয়ন প্রকল্পের অধীনে জেলার বৃহত্তম মৎস্য প্রজনন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত ছিল। বর্তমানে মৎস্য বিভাগের সরাসরি তত্ত্বাবধানে পরিচালিত দেশের তিনটি মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রের মধ্যে রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র অন্যতম।

প্রায় ৫৪ একর জুড়ে রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটি গড়ে উঠেছে। এখানে ৮টি খামার, ১৪টি ডেইরি খামার, ৭২টি  পোলট্রি খামার ও ২০১টি পুকুর রয়েছে। এছাড়া আছে ৪ কক্ষ বিশিষ্ট সরকারি হাউজ, একটি হ্যাচারি ও ল্যাবরেটরি। এই মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রের প্রায় ১২ টন প্রজননক্ষম মা মাছ থেকে কাতলা, মৃগেল, কালাবাউশ, মাগুর ও শিং মাছসহ বিভিন্ন জাতের প্রায় ৫০৪ কেজি পোনা উৎপাদিত হয়।

কিভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকার সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে গ্রীনল্যান্ড এক্সপ্রেস, রয়েল কোচ, হিমাচল এক্সপ্রেস, ইকোনো, মিয়ামি, আল বারাকা, জোনাকি সার্ভিস ও ঢাকা এক্সপ্রেস বাসে লক্ষ্মীপুর যাওয়া যায়। এছাড়া ঢাকার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে লঞ্চে লক্ষ্মীপুর মজু চৌধুরীর ঘাট যেতে পারবেন। লক্ষ্মীপুর পৌঁছে রিকশা বা সিএনজিতে রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যেতে পারবেন। তবে মৎস্য কেন্দ্রে প্রবেশের ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে।

কোথায় থাকবেন

লক্ষ্মীপুরে হোটেল ফিরোজ, এন আর গেস্ট হাউজ, স্টার গেস্ট হাউজ, সেন্ট মার্টিন আবাসিক, সোনার বাংলা গেস্ট হাউজ, হোটেল আব-ই-হায়াত ও হোটেল ইউনিক প্রভৃতি আবাসিক হোটেল রয়েছে।

কোথায় খাবেন

লক্ষ্মীপুর শহরের মেইন রোডের কাছে বিভিন্ন মানের রেস্তোরাঁ, ফাস্ট ফুড শপ ও চাইনিজ রেস্টুরেন্ট রয়েছে। ভালমানের খাবারের জন্য তৃপ্তি হোটেল, হোটেল রাজমহল, নিউ লক্ষ্মী, গ্র্যান্ড হোটেল, কুটুম বাড়ি, আব্বাস আলী রেস্টুরেন্ট, মোহাম্মদীয়া হোটেল ও ফুড গার্ডেন উল্লেখযোগ্য। আর সুযোগ পেলে লক্ষ্মীপুরের রামগতির মহিষের দই ও ছানার জিলাপির স্বাদ নিয়ে দেখতে পারেন।

লক্ষ্মীপুর জেলার দর্শনীয় স্থান

লক্ষ্মীপুরের অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে মতিরহাট সৈকত, জ্বীনের মসজিদ, চর আলেকজান্ডার ও দালাল বাজার জমিদার বাড়ি অন্যতম।

ফিচার ইমেজ: সাইফুল্লাহ খান

ম্যাপে রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।