টাঙ্গাইলের বিখ্যাত পোড়াবাড়ির চমচমের (Porabari Chomchom) কথা শুনেনি এমন মানুষ হয়তো খুব কমই আছে। প্রায় দুইশ বছরের প্রাচীন ঐতিহ্য বজায় রেখে বানানো পোড়াবাড়ির চমচমের সুনাম রয়েছে বিশ্বজোড়া। সুস্বাদু ও লোভনীয় মিষ্টির রাজা হিসেবে খ্যাত ছানার তৈরি এই চমচমের স্বাদ নিতে দূর দূরান্ত থেকে মানুষ টাঙ্গাইলে ছুটে আসে। আর এই চমচমের গুণে সারাবিশ্বে টাঙ্গাইল জেলার রয়েছে এক অনন্য পরিচিতি।

টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির ধলেশ্বরী নদীর তীরে ছোট্ট একটি গ্রামে এই মিষ্টান্ন বানানো হয়। ধারনা করা হয়, চমচম বানানোর ক্ষেত্রে ধলেশ্বরী নদীর প্রাকৃতিক পরিবেশের বিশেষ প্রভাব রয়েছে। আর এ কারণে কারিগররা বিশ্বাস করেন টাঙ্গাইল শহরের বাইরে গিয়ে এই মিষ্টি বানানো সম্ভব না। প্রাচীন কালে মিষ্টি প্রস্তুতকারীদের হালই বলা হতো। পোড়াবাড়ির চমচম বানাতে দেশি গাভীর দুধ দিয়ে তৈরি ছানার সাথে চিনি ব্যবহার করা হয়। সুস্বাদু পোড়াবাড়ির চমচমের প্রধান কারিগর সম্পর্কে নিশ্চিত তথ্য পাওয়া না গেলেও “যশোরাথ” নামের এক কারিগরকে এই মিষ্টির প্রচলক বলে ধারনা করা হয়। পরবর্তীতে পোড়াবাড়ি গ্রামের ঘোষ ও পাল বংশের লোকেরা বংশানুক্রমে চমচম তৈরির সাথে জড়িত হন।

বর্তমানে পোড়াবাড়ি বাজার, চারাবাড়ি বাজার, সন্তোষ মিলিয়ে ১৩টি মিষ্টি তৈরীর কারখানা রয়েছে। এছাড়া টাঙ্গাইলের মিষ্টি পট্টি এলাকা এবং পুরো শহর জুড়ে প্রায় ৫০টি মিষ্টির দোকান রয়েছে। পোড়াবাড়ির চমচম ছাড়াও এসব দোকানে রসগোল্লা, পানতোয়া, আমিত্তি, রাজভোগ, মোহন ভোগ, জিলাপি ও দই ইত্যাদি বিভিন্ন মিষ্টি জাতীয় খাবার পাওয়া যায়। ঐতিহ্যবাহী পোড়াবাড়ির চমচম বর্তমান সময়ে বিভিন্ন উৎসব অনুস্থানে বিশেষ স্থান দখল করে আছে।

কিভাবে যাবেন

পোড়াবাড়ির চমচমের স্বাদ নিতে হলে টাঙ্গাইল জেলার পাঁচ আনি বাজারে যেতে হবে। টাঙ্গাইল শহর থেকে পাঁচ আনি বাজারের দূরত্ব ২১ কিলোমিটার। ঢাকা থেকে বাস, ট্রেন অথবা নিজস্ব পরিবহনে টাঙ্গাইল যেতে পারবেন। টাঙ্গাইল শহরে পৌঁছে রিক্সা নিয়ে পাঁচ আনি বাজারের হালুই পট্টি বা মিষ্টি পট্টিতে যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

চাইলে ঢাকা থেকে একদিনের মধ্যে পোড়াবাড়ির চমচমের স্বাদ নিয়ে ফিরে আসতে পারবেন। প্রয়োজনে রাত্রি যাপনের জন্য টাঙ্গাইল শহরে অবস্থিত হোটেল আল ফয়সাল, ব্যুরো হোটেল, আনসারি প্যালেস, হোটেল প্রিন্স ও হোটেল শান্তি-তে যোগাযোগ করতে পারেন। টাঙ্গাইলে আরো আছে বঙ্গবন্ধু সেতু রিসোর্ট, এলেঙ্গা রিসোর্ট, সার্কিট হাউজ, কালিহাতি ফরেস্ট রেস্ট হাউজ এবং জেলা পরিষদের ডাক বাংলো।

কোথায় খাবেন

টাঙ্গাইল শহরের নিরালা মোড়ে বিভিন্ন মানের খাওয়ার হোটেল ও রেস্টুরেন্ট আছে। এছাড়া পাঁচ আনি বাজারে যাওয়ার পথে মুন হাউজ, বিনিময় এবং ফুড পার্ক রেস্টুরেন্টে খাবার খেতে পারবেন।

অন্যান্য দর্শনীয় স্থান

টাঙ্গাইল জেলার অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে এসপি পার্ক, মহেরা জমিদার বাড়ি, আতিয়া মসজিদ, ২০১ গম্বুজ মসজিদ, ধনবাড়ি মসজিদ, মধুপুর জাতীয় উদ্যান ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

ফিচার ইমেজ: অফরোড বাংলাদেশ

ম্যাপে পোড়াবাড়ির চমচম

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।