সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পাগলা বাজার নামক স্থানে মহাসিং নদীর তীরে শতবর্ষ পুরনো স্থাপত্য নিদর্শন পাগলা বড় জামে মসজিদ (Pagla Jame Masjid) অবস্থিত। স্থানীয়ভাবে এটি রায়পুর বড় জামে মসজিদ নামে পরিচিত। ১৯৩১ সালে স্থানীয় ব্যবসায়ী ইয়াসীন মির্জা ভারত থেকে দক্ষ স্থপতি মুমিন আস্তাগারের মধ্যমে পাগলা বড় জামে মসজিদের নির্মাণ কাজ শুরু করেন। ১৩৩১ বঙ্গাব্দের ৫ই আশ্বিন শুক্রবার মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। টানা দশ বছর কাজ চলার পর মসজিদটি বর্তমান রুপ লাভ করে। দ্বিতল এই মসজিদের মসজিদের দৈর্ঘ্য ১৫০ মিটার এবং প্রস্থ ৫০ মিটার। মসজিদের ছাদের ২৫ ফুট উচ্চতার ৩টি গম্বুজ ও ৬টি সুউচ্চ মিনার রয়েছে।

পাগলা বড় জামে মসজিদের নির্মাণশৈলী ও নান্দ্যনিক কারুকাজ সবাইকে আকর্ষণ করে। জমকালো পাথর কেটে মসজিদের মিহরাবের নকশা করা হয়েছে। মসজিদের চারদিকে স্থাপিত কারুকার্যখচিত টাইলসগুলো আনা হয়েছে ইতালি, জার্মানি ও ইংল্যান্ড থেকে। মসজিদের বিশেষ বৈশিষ্ট হচ্ছে দ্বিতল এই মসজিদ নির্মাণে কোন রডের ব্যবহার করা হয়নি। সম্পূর্ণ ইটের ব্যবহারে নির্মিত স্থাপনাটিকে ভূমিকম্প নিরোধক করতে মজবুত পাতের উপর মসজিদের ভিত বসানো হয়েছে। পাগলা বড় জামে মসজিদের সামনে আছে বিশাল ঈদগাহ মাঠ এবং উত্তর দিকে একটি প্রবেশ তোড়ন রয়েছে।

কিভাবে যাবেন

সুনামগঞ্জ জেলা সদর থেকে সিএনজি বা অটোরিকশার মত স্থানীয় যানবাহনে চড়ে সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কের পাশে অবস্থিত পাগলা বড় জামে মসজিদ পৌঁছাতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

সুনামগঞ্জ শহরে ২০০ থেকে ১০০০ টাকা ভাড়ায় বিভিন্ন মানের হোটেলে রাতে থাকতে পারবেন। উল্লেখযোগ্য হোটেলের মধ্যে রয়েছে হোটেল নূর, হোটেল সারপিনিয়া, হোটেল নূরানী, হোটেল মিজান, হোটেল প্যালেস এবং সুরমা ভ্যালী আবাসিক রিসোর্ট।

কোথায় খাবেন

সুনামগঞ্জে বিশেষভাবে প্রসিদ্ধ কোন খাবার রেস্টুরেন্ট নেই। মাঝারি মানের খাবার হোটেল বা রেস্টুরেন্ট থেকে নিজের প্রয়োজনীয় খাবারের চাহিদা মেটাতে পারবেন। এদের মধ্যে পাঁচ ভাই, ফাইভ স্টার, জনতা, হোটেল রাজ প্রভৃতি অন্যতম।

সুনামগঞ্জ জেলার দর্শনীয় স্থান

সুনামগঞ্জ জেলা ভৌগলিকভাবেই বৈচিত্রপূর্ণ। হাসান রাজা মিউজিয়াম ছাড়াও সুনামগঞ্জ জেলার জনপ্রিয় ভ্রমণ স্থানের মধ্যে রয়েছে টাঙ্গুয়ার হাওরশহীদ সিরাজ লেক বা নীলাদ্রী লেকযাদুকাটা নদীবারিক্কা টিলা ও শিমুল বাগান

ফিচার ইমেজ: রবি শঙ্কর সরকার

ম্যাপে পাগলা বড় জামে মসজিদ

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।