রাজধানী ঢাকার শেরে বাংলা নগরে অবস্থিত জাতীয় সংসদ ভবন (National Parliament House) বাংলাদেশের স্থাপত্য শিল্পের একটি অনন্য নিদের্শন। ১৯৬১ সালে সংসদ ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু হলেও তা ১৯৮২ সালে শেষ হয়। স্থপতি লুই আই কানের নকশায় নির্মিত জাতীয় সংসদ ভবনের মাঝখানে রয়েছে প্রধান হল। প্রধান হলে সংসদ সদস্যগণ পার্লামেন্টের কাজ করেন। মূল হল রুমকে কেন্দ্র করে জাতীয় সংসদ ভবনের অন্যান্ন অংশগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। সংসদ ভবন নয়তলা বিশিষ্ট হলেও মাত্র তিনটি তলার সাথে অনুভূমিক যোগাযোগ রয়েছে এবং মাটির উপরের কাঠামোর উচ্চতা ৪৯.৬৮ মিটার।

জাতীয় সংসদ ভবনের মূল কমপ্লেক্সটি ৯টি ভাগে বিভক্ত। কেন্দ্রীয় অষ্টভুজাকৃতির অংশটি উচ্চতায় ৪৭.২৪ মিটার এবং বাকি আটটি অংশ ৩৩.৫৩ মিটার উঁচু। সম্পূর্ণ সংসদ ভবন কমপ্লেক্সে নির্মিত স্থাপনাগুলোর আয়তন মূল ভবন ৭৪,৪৫৯.২০ বর্গমিটার, দক্ষিণ প্লাজা ২০,৭১৭.৩৮ বর্গমিটার এবং উত্তর প্লাজা ৬,০৩৮.৭০ বর্গমিটার। জাতীয় সংসদ ভবনের বেসমেন্টে রয়েছে কার পার্কিং, তত্ত্বাবধায়ক এজেন্সির অফিস এবং মূল ভবনের সাথে যুক্ত বিভিন্ন সুযোগ সুবিধাদির প্রদানের ব্যবস্থা। কৃত্রিম লেক পরিবেষ্টিত জাতীয় সংসদ ভবনকে দেখলে পানির উপরে ভেসে থাকা ভবন বলে মনে হয়।

সংসদ ভবনের উত্তর দিকে আছে সবুজ ঘাসের বাগান ও ইউক্যালিপটাস গাছে শোভিত প্রেসিডেন্সিয়াল স্কয়ার। সংসদ ভবনের কোথাও কোনো কলাম নেই, যেন বিশাল কংক্রিটকে খোদাই করে অসাধারণ কারুকার্যময় ভাস্কর্য্য নির্মাণ করা হয়েছে। যা বাংলাদেশের অন্যান্য আধুনিক ভবনগুলো থেকে জাতীয় সংসদ ভবনকে দিয়েছে বিশেষ স্বতন্ত্রতা।

জাতীয় সংসদ ভবন পরিদর্শন করার নিয়মাবলী

বাইরে থেকে যেকেউ জাতীয় সংসদ ভবনের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে পারবে। আর রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত শর্তসাপেক্ষে বিনামূল্যে জাতীয় সংসদ ভবনের ভিতরের অংশ পরিদর্শন করা যায়। যেকোন বাংলাদেশী নাগরিককে জাতীয় সংসদ ভবন পরিদর্শন করতে বাংলাদেশ সংসদ সচিবালয়ের সচিবের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে। বিদেশী নাগরিকদের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট ফি প্রদান সাপেক্ষ্যে সংসদ ভবন পরিদর্শনের সুযোগ দেয়া হয়। ফি এর পাশাপাশি বিদেশী নাগরিকদের একটি নির্দিষ্ট ফরম পূরণ এবং পাসপোর্ট ও ভিসার ফটোকপি জমা দিতে হয়। ওয়েবসাইট: www.parliament.gov.bd

জাতীয় সংসদ ভবন কিভাবে যাবেন

ঢাকার যেকোন স্থান থেকে সিএনজি, বাস, প্রাইভেটকার কিংবা মোটর রাইড সার্ভিসে করে জাতীয় সংসদ ভবন দেখতে আসতে পারবেন।

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।