নরসিংদী জেলা থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে পলাশ উপজেলার ঘোড়াশাল পৌর এলাকার কেন্দ্রস্থলে ব্যাক্তিগত মালিকানাধীন ঘোড়াশাল জমিদার বাড়ি (Ghorashal Zamidar Bari) অবস্থিত। স্থানীদের কাছে এই বাড়িটি মনু মিয়া জমিদার বাড়ি (Monu Mia Zamidar Bari) হিসেবে পরিচিত। ১১৭৬ বঙ্গাব্দে জমিদার সাজদা মিয়া এই জমিদার বাড়িটি নির্মাণ করেন। তবে আহমাদুল কবির মনু মিয়ার পিতা আবু ইউসুফ লুৎফুল কবির মনু মিয়া জমিদার বংশের মধ্যে সবচেয়ে সফল ও জননন্দিত হওয়ার তাঁর নামে বাড়িটির নামকরণ করা হয়।

প্রায় ১০ একর জায়গা নিয়ে নান্দনিক সৌন্দর্যে ঘেরা পাশাপাশি তিনটি কারুকার্যমণ্ডিত বাড়ির সমন্বয়ে মনু মিয়া জমিদার বাড়ি গঠিত। চারিদিকে অসংখ্য ফুল ও ফলের গাছ দিয়ে ঘেরা এই বাড়ির ভিতরে রয়েছে দুইটি প্রধান ভবন, কাছারিঘর, নায়েব সাহেবদের ঘর, গোমস্তাদের ঘর, দীঘি, লজ, কারুকার্যময় মসজিদ, মাঠ, শান বাঁধানো দুইটি পুকুর প্রভৃতি। গাছগাছালিতে ঘেরা মনোরম পরিবেশে সময় কাটাতে ও দৃষ্টিনন্দন বাড়ির সৌন্দর্য দেখতে দূর দূরান্ত থেকে অনেকেই ছুটে আসেন। তবে জমিদার বাড়িতে প্রবেশ ও ছবি তোলার ক্ষেত্রে বাড়ির মালিক পক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে মনু মিয়ার জমিদার বাড়িতে যেতে চাইলে প্রথমে নরসিংদী জেলার পাঁচদোনা নামক স্থানে আসতে হবে। পাঁচদোনা থেকে সিএনজি বা অটোতে চড়ে ঘোড়াশাল হয়ে মনু মিয়ার জমিদার বাড়ি যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

নরসিংদীতে ইব্রাহীম কটেজ, সার্কিট হাউজ, এলজিইডির রেস্ট হাউজ ও জেলা পরিষদের ডাক বাংলো সহ বেশকিছু আবাসন ব্যবস্থা আছে।

কোথায় খাবেন

নরসিংদীতে ফাল্গুনি হোটেল, বাবুর্চি আলমগির হোটেল, বন্ধু হোটেল ও খোকন হোটেল সহ বেশকিছু জনপ্রিয় হোটেল রয়েছে। নরসিংদীর ঐতিহ্যবাহী খাবারের মধ্যে রসগোল্লা, লালমোহন, খিরমোহন ও শাহী জিলাপি উল্লেখযোগ্য।

নরসিংদী জেলার দর্শনীয় স্থান

নরসিংদীর অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে লক্ষণ সাহার জমিদার বাড়ি, গিরীশ চন্দ্র সেনের বাড়ি, উয়ারি বটেশ্বর, সোনাইমুড়ি টেক, বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান জাদুঘর, আটকান্দি মসজিদ, লটকন বাগান, বালাপুর জমিদার বাড়ী ও ড্রিম হলিডে পার্ক উল্লেখযোগ্য।

ফিচার ইমেজ: মঞ্জুর আল মুরশেদ চৌধুরী

ভ্রমণ সংক্রান্ত যে কোন তথ্য ও আপডেট জানতে ফলো করুন আমাদের ফেসবুক পেইজ এবং জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে

ম্যাপে মনু মিয়া জমিদার বাড়ি

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।