ঝিনাইদহ জেলা সদর থেকে মাত্র ৩ কিলোমিটার দূরে মুরারীদহ গ্রামে অবস্থিত মিয়ার দালান (Miyar Dalan) একটি ঐতিহ্যবাহী দর্শনীয় স্থান। ১২৩৬ বঙ্গাব্দে জমিদার কতৃক নির্মিত মিয়ার দালানটি ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের সময় সেলিম চৌধুরী নামের এক ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে দেয়া হয়। তাই স্থানীয়ভাবে অনেকের কাছেই এটি সেলিম চৌধুরীর বাড়ি হিসাবেও পরিচিত। এছাড়া মিয়ার দালানকে বিশেষভাবে পরিচিত করেছিল এখানে থাকা একটি খেজুর গাছ। আর এই খেজুর গাছটির ১২টির বেশি চূঁড়া ছিল, যার প্রতিটি চূঁড়া থেকেই রস আহরণ করা যেত।

মিয়ার দালান থেকে নবগঙ্গা নদীর তলদেশ দিয়ে একটি সুড়ঙ্গ তৈরি করা হয়েছিল, যার প্রবেশমুখ বর্তমান সময়েও চিহ্নিত করা যায়। নবগঙ্গা নদীতে বাঁধ দিয়ে মিয়ার দালানের মত নির্মিত ঐতিহ্যবাহী কোন স্থাপনা ঝিনাইদহে আর দ্বিতীয়টি দেখতে পাওয়া যায় না। মিয়ার দালানের দেয়ালে কাব্যিক ভাবে নির্মাতা, নির্মাণের ব্যয় এবং অন্যান্য তথ্য লেখা রয়েছে।

মিয়ার দালানের দেয়ালের ঐতিহাসিক লেখাটি হচ্ছে:

শ্রী শ্রী রাম মুরারীদহ গ্রাম ধাম,
বিবি আশরাফুন্নেসা নাম,
কি কহিব হুরির বাখান।
ইন্দ্রের অমরাপুর নবগঙ্গার উত্তর ধার,
৭৫০০০ টাকায় করিলাম নির্মাণ।
এদেশে কাহার সাধ্য বাধিয়া জলমাঝে কমল সমান।
কলিকাতার রাজ চন্দ্র রাজ,
১২২৯ সালে শুরম্ন করি কাজ
১২৩৬ সালে সমাপ্ত দালান।

কিভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকার গাবতলী থেকে রয়েল, জেআর, সোনার তরী, চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স এবং এসবি পরিবহনের এসি/নন-এসি বাসে চড়ে ঝিনাইদহ যাওয়া যায়। এসি/নন-এসি বাসের টিকেটের মূল্য জনপ্রতি ৪৫০ থেকে ৬০০ টাকা।

ঝিনাইদহ সদর থেকে ভ্যান, রিক্সা বা অটোরিক্সায় সহজেই ৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত মিয়ার দালান দেখতে যাওয়া যায়।

কোথায় থাকবেন

ঝিনাইদহে থাকার জন্য বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে। এদের মধ্যে হোটেল ড্রীম ইন্টারন্যাশনালের এসি/নন-এসি রুমে প্রতি রাত থাকতে ৭০০ থেকে ১৫০০ টাকা খরচ করতে হবে। আর হোটেল কুটুমে থাকতে গুনতে হবে ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা।

কোথায় খাবেন

ঝিনাইদহ শহরে আহার, ফুড সাফারী, সুইট, ঘরোয়া ইত্যাদি রেস্টুরেন্টে প্রয়োজনীয় খাবারের পাশাপাশি ঘোষ এর মিষ্টি, পায়রা চত্ত্বরের ছানা ও ছানার জিলাপী খেয়ে দেখতে পারেন।

ম্যাপে মিয়ার দালান

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।