বাংলা সাহিত্যের জনপ্রিয় মহাকাব্যিক উপন্যাস বিষাদ সিন্ধু’র রচয়িতা মীর মশাররফ হোসেন ১৮৪৭ সালের ১৩ ই নভেম্বর কুষ্টিয়ার লাহিনীপাড়া গ্রামে তাঁর মামার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। মীর মশাররফ হোসেনের পিতা মীর মোয়াজ্জ্বেম হোসেন রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের পদমদী গ্রামে বাস করতেন। জানা যায় মীর মশাররফ হোসেনের পূর্বপুরুষ সৈয়দ সাদুল্লাহ বাগদাদ থেকে প্রথমে দিল্লী এবং পরবর্তীতে ফরিদপুর জেলার স্যাকরা গ্রামে এসে বসবাস শুরু করেন।

নিজ গৃহ হতে শুরু করে মীর মশারফ হোসেনের শিক্ষা জীবন কাটে কুষ্টিয়া, ফরিদপুর এবং কৃষ্ণনগরের বিভিন্ন বিদ্যালয়ে। পৈতৃক নিবাস থেকেই মীর মশাররফ হোসেন তাঁর জীবনের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক গ্রন্থ রচনা করেন। তাঁর মোট গ্রন্থের সংখ্যা প্রায় ৩৭টি। বিশুদ্ধ বাংলায় একে একে তিনি লিখে গেছেন বিভিন্ন কালজয়ী গদ্য, পদ্য, প্রবন্ধ, নাটক এবং উপন্যাস। তৎকালীন সময়ে ‘জমিদার দর্পন’ নাটকের জন্য তিনি শ্রেষ্ট নাট্যকারের মর্যাদা লাভ করেন।

মীর মশাররফ হোসেনের সর্বশ্রেষ্ট গ্রন্থ ‘বিষাদ সিন্ধু’ বাংলা সাহিত্যের এক অমূল্য সম্পদ। বাংলার মুসলিম সমাজে আজো তাঁর এই সাহিত্যকে ধর্মগ্রন্থের মতই গুরুত্বের সাথে পাঠ করা হয়। ১৯১১ সালের ১৯ ডিসেম্বর পদমদীর নিজ গৃহে মীর মশারফ হোসেন শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁকে তার স্ত্রী কুলসুমের সমাধির পাশে সমাহিত করা হয়।

মীর মশারফ হোসেনের স্মৃতি রক্ষার্থে ২০০১ সালে মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতি কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। প্রায় দুই একর জায়গা জুড়ে আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতি কেন্দ্র (Mir Mosharraf Hossain Memorial Museum) ২০০৫ সালে দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেয়া হয়। মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতি কেন্দ্রে আছে সংগ্রহশালা, ১০০ আসন বিশিষ্ট সেমিনার কক্ষ, দফতর, গ্রন্থাগার, অতিথি কক্ষ, অভ্যর্থনা কক্ষ, ডাইনিং, কিচেন এবং প্রসাধন কক্ষ। বর্তমানে এই স্মৃতিকেন্দ্রটিতে অসংখ্য দর্শনার্থী ভ্রমণ করতে আসেন।

সময়সুচিঃ শুক্র ও শনিবার সহ সকল ধরণের সরকারি ছুটির দিনে মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতিকেন্দ্র দর্শনার্থীদের জন্য বন্ধ থাকে।

কিভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকার গাবতলি থেকে রাবেয়া, রাজবাড়ী পরিবহণ, সপ্তবর্ণা, সাউদিয়া বাসে চড়ে রাজবাড়ী যেতে জনপ্রতি ২৫০ টাকা ভাড়া লাগে। এছাড়া খরচ কমাতে চাইলে বিআরটিসি বাসে ১০০ টাকায় পাটুরিয়া এসে ২৫ টাকা ভাড়ায় লঞ্চে নদী পেরিয়ে আবার ৩০ টাকা বাস ভাড়ায় রাজবাড়ী শহর পৌঁছাতে পারবেন। রাজবাড়ী জেলায় এসে অটোরিকশা রিজার্ভ করে সরাসরি মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতি কেন্দ্র যেতে পারবেন।

এছাড়া বাস বা অটোরিকশা করে রাজবাড়ীর-কুষ্টিয়া রোডের কালুখালী উপজেলাস্থ মহিমশাহী বাজারে এসে পৃথক আরেকটি অটোরিকশা নিয়ে স্মৃতিকেন্দ্রে যাওয়া যায়।

কোথায় থাকবেন

রাজবাড়ী (Rajbari) জেলায় কয়েকটি সরকারি ডাক বাংলো এবং বেশকিছু আবাসিক হোটেল রয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছে – হোটেল পার্ক, কেনটন চাইনিজ হোটেল ও রেস্তোরা, গুলশান বোডিং, প্রাইম হোটেল, পাংশা ডাকবাংলো, বালিয়াকান্দি ডাক বাংলো, গোয়ালন্দ ডাক বাংলো।

কোথায় খাবেন

মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতি কেন্দ্রে তেমন কোন খাবারের ব্যবস্থা নেই। পদমদী থেকে ২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত আনন্দ বাজারে সাধারণ মানের কিছু হোটেল আছে। তবে রাজবাড়ীতে বিভিন্নমানের খাবারের হোটেলে আপনার প্রয়োজনীয় খাবার খেতে পারবেন। এছাড়াও অন্যান্য খাবারের মধ্যে পান বাজারে অবস্থিত ভাদু শাহার দোকানের চমচম, রেলগেইটের হৈরা শাহের চপ এবং ঝালাই পট্টির কুলফি মালাই খেয়ে দেখতে পারেন।

ফিচার ইমেজ: চৌধুরী সামিউল কাদের

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।