একপাশে ঝাউবনে ঘেরা সমুদ্র সৈকত এবং অন্যপাশে পাহাড় বেষ্টিত পেঁচারদিয়া গ্রামের পেঁচার দ্বীপ স্থানটি বর্তমানে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। পেঁচার দ্বীপের মাঝখান দিয়ে তৈরী করা হয়েছে ৮৪ কিলোমিটার দীর্ঘ কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ সড়ক। টেকনাফগামী মেরিন ড্রাইভ সড়কের পশ্চিম পাশে রেজু খালের কাছে গড়ে তোলা হয়েছে মারমেইড বিচ রিসোর্ট (Mermaid Beach Resort)

সম্পূর্ণ কোলাহলমুক্ত, সবুজে ঘেরা রিসোর্টের দিকে তাকালে গাছপালার আড়ালে ছোট-বড় বেশকিছু কুটির চোখে পড়ে। আর এই কুঠিরগুলোতে আছে আধুনিক সকল সুযোগ সুবিধা। মারমেইড বিচ রিসোর্টে আগত অতিথিদের অভ্যর্থনা জানানো হয় বুনোফুলের মাধ্যমে। আর ওয়েলকাম ড্রিংকস হিসাবে থাকে সদ্য গাছ থেকে পেড়ে আনা ডাবের পানি।

মারমেইড বিচ রিসোর্টের সর্বত্র উপস্থাপনায় নান্দ্যনিকতা এবং স্বকীয়তার বিশেষ প্রকাশ লক্ষ করা যায়। আর এই রিসোর্টে পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর এমন সব জিনিস যথাসম্ভব কম ব্যবহার করা হয়েছে। ইয়োগা সেন্টার, স্পা, নৌকা ভ্রমণ, সম্মেলন কক্ষ, প্রেক্ষাগৃহ ইত্যাদি সবকিছুরই ব্যবস্থা রাখা হয়েছে এই পরিবেশবান্ধব অবকাশ যাপন কেন্দ্রে। পর্যটকদের আনন্দময় অবকাশ যাপনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে মারমেইড ইকো রিসোর্টকে সাজিয়েছেন স্থপতি জিয়াউদ্দিন খান।

মারমেইড বিচ রিসোর্টে যাওয়ার উপায়

কক্সবাজার শহরের কলাতলী থেকে সিএনজি বা অটোরিকশায় চড়ে রেজু ব্রিজের কাছে অবস্থিত মারমেইড বিচ রিসোর্টে যেতে ১৮০ থেকে ২০০ টাকা ভাড়া লাগে।

কক্সবাজার যেভাবে যাবেন
ঢাকা থেকে কক্সবাজার সড়ক, রেল এবং আকাশপথে যাওয়া যায়। ঢাকা থেকে কক্সবাজারগামী বাসগুলোর মধ্যে সৌদিয়া, এস আলম মার্সিডিজ বেঞ্জ, গ্রিন লাইন, হানিফ এন্টারপ্রাইজ, শ্যামলী পরিবহন, সোহাগ পরিবহন, এস.আলম পরিবহন, মডার্ন লাইন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। শ্রেণী ভেদে বাসগুলোর প্রতি সীটের ভাড়া ৯০০ টাকা থেকে ২০০০ টাকার পর্যন্ত।

ঢাকা থেকে ট্রেনে কক্সবাজার ভ্রমণ করতে চাইলে কমলাপুর কিংবা বিমানবন্দর রেলস্টেশান হতে সোনার বাংলা, সুবর্ন এক্সপ্রেস, তূর্ণা-নিশীথা, মহানগর প্রভাতী/গোধূলী, চট্রগ্রাম মেইলে যাত্রা করতে পারেন। এরপর চট্টগ্রামের নতুন ব্রিজ এলাকা অথবা ধামপাড়া বাস্ট স্ট্যান্ড থেকে এস আলম, হানিফ, ইউনিক ইত্যাদি বিভিন্ন ধরণ ও মানের বাস পাবেন। বাস ভেদে ভাড়া ২৮০ থেকে ৫৫০ টাকা।

এছাড়া বাংলাদেশ বিমান, নভোএয়ার, ইউএস বাংলা এবং রিজেন্ট এয়ারওয়েজের বেশকিছু বিমান ঢাকা থেকে সরাসরি কক্সবাজার ফ্লাইট পরিচালনা করে থাকে। এছাড়া আকাশপথে চট্রগ্রাম এসে সড়ক পথে উপরে উল্লেখিত উপায়ে কক্সবাজার যেতে পারবেন।

মারমেইড রিসোর্টে থাকার খরচ

থ্রি স্টার হোটেলের যাবতীয় সুবিধা সম্বলিত মারমেইড বিচ রিসোর্টে বিভিন্ন ক্যাটাগরির রুমের ৩০টি কটেজ আছে। বলে রাখা ভাল ১ কিলোমিটার দূরত্বে একই মালিকানায় মারমেইড বিচ রিসোর্ট এবং মারমেইড ইকো রিসোর্ট নামে দুইটি রিসোর্ট পরিচালিত হচ্ছে। মারমেইড ইকো রিসোর্টের কটেজের রুম ভাড়া ৪ হাজার ৫০০ থেকে শুরু করে ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত এবং মারমেইড বিচ রিসোর্টের কটেজ ভাড়া ১২ হাজার থেকে শুরু করে ৩৬ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। তবে বছরের বিভিন্ন সময় এখানে ছাড়ের ব্যবস্থা থাকে।

খাবার

আগত অথিতিদের জন্য মারমেইড বিচ রিসোর্টে দেশি বিদেশি খাবারের রেস্টুরেন্ট এবং একটি জুস বার রয়েছে।

যোগাযোগ
মোবাইল: +8801841-416464, +8801841-416468, +8801841-416469
ওয়েবসাইট:
www.mermaidecoresort.com
www.mermaidbeachresort.net

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।