নীলফামারী সদর উপজেলা থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে কুন্দু পুকুর ইউনিয়নে ইসলামের মহান সাধক মহিউদ্দিন চিশতির (রাঃ)-র মাজার অবস্থিত। স্থানীয়দের কাছে এই মাজার কুন্দ পুকুর মাজার (Kundo Pukur Majar) হিসেবে পরিচিত। সুদূর পারস্য থেকে ইসলাম ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে হযরত মহিউদ্দিন চিশতি (রাঃ) কুন্দু পুকুর এলাকায় আসেন এবং এখানেই তিনি পরলোক গমন করেন।

কুন্দ পুকুর মাজার কমপ্লেক্সে একটি মসজিদ, একটি হেফজখানা ও একটি বড় পুকুর রয়েছে। প্রতিবছর বাংলা বছরের মাঘ মাসের ৫ তারিখে এখানে বার্ষিক ওরশের আয়োজন করা হয়। তখন দূর দূরান্ত থেকে অসংখ্য ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের সমাগম ঘটে।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে সড়ক ও রেলপথে নীলফামারি যাওয়া যায়। রাজধানীর কলেজগেট, গাবতলী ও মহাখালী থেকে সরাসরি নীলফামারী যাওয়ার বাস ছেড়ে যায়। আর কমলাপুর বা বিমানবন্দর রেলওয়ে ষ্টেশন থেকে নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনে নীলফামারী যেতে পারবেন। ঢাকা থেকে কম সময়ে যেতে চাইলে ডোমেস্টিক এয়ারলাইন্সে সৈয়দপুর গিয়ে নীলফামারী পৌঁছাতে পারবেন। নীলফামারী শহর থেকে স্থানীয় পরিবহনে চড়ে কুন্দু পুকুর মাজার যাওয়া যায়।

কোথায় থাকবেন

নীলফামারী জেলার আবাসিক হোটেলের মধ্যে হোটেল প্রিমিয়ার, রনি ড্রিম, শিশির হোটেল, অবকাশ হোটেল, আর রহমান ও নাভানা রেস্ট হাউজ উল্লেখযোগ্য।

কোথায় খাবেন

নীলফামারীতে তাজিন উদ্দিন গ্র্যান্ড হোটেল, দারুচিনি ক্যাফে, হোটেল টিপ টপ, হোটেল স্টার, হোটেল আকবরিয়া ও হোটেল রহমতিয়া সহ অসংখ্য খাবার হোটেল ও রেস্টুরেন্ট আছে।

নীলফামারী জেলার দর্শনীয় স্থান

নীলফামারী জেলার অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে রেলওয়ে কারখানা, নীলসাগর, তিস্তা ব্যারেজচিনি মসজিদ অন্যতম।

ভ্রমণ সংক্রান্ত যে কোন তথ্য ও আপডেট জানতে ফলো করুন আমাদের ফেসবুক পেইজ এবং জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে

ম্যাপে কুন্দ পুকুর মাজার

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।