ঝিনাইদহ জেলা থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে হরিশংকরপুরে নবগঙ্গা নদীর তীরে জগদ্বিখ্যাত গণিতবিদ কে পি বসুর বাড়ি অবস্থিত। ১৯০৭ সালে কে পি বসু হরিশংকরপুরে ১৭ কক্ষ বিশিষ্ট প্রাসাদাকার দ্বিতল ভবনটি নির্মাণ করেন। বর্তমানে বাড়িটি অরক্ষিতভাবে জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে থাকলেও এক সময়ের দৃষ্টিনন্দন বাড়িটি দেখতে অনেক দর্শনার্থীর আগমন ঘটে। বিখ্যাত এই গণিত বিদের স্মৃতিতে ঝিনাইদহ জেলায় একটি সড়কও নির্মাণ করা হয়েছে।

কে পি বসুর পরিচিতি

কে পি বসুর অর্থাৎ কালীপদ বসু ১৮৬৫ সালে ঝিনাইদহ সদরের হরিশংকরপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মহিমা চরণ বসু হরিশংকরপুরের রেজিস্ট্রি অফিসের একজন কর্মচারী ছিলেন। বাল্যকাল থেকে গণিতের মতো জটিল বিষয়ে কে.পি বসুর পাণ্ডিত্য লক্ষ্য করা যায়। গ্রামের স্কুলের পড়াশোনা শেষ করে তিনি লর্ড রিপন কলেজে ভর্তি হন এবং সেখান থেকে গণিত শাস্ত্রে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তীতে ১৮৯২ সালে তিনি ঢাকা কলেজে গনিত শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯২৪ সালে পার্নিসাস ম্যালেরিয়া জ্বরে আক্রান্ত হয়ে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। কে. পি বসুকে প্রথম আধুনিক বীজগণিতের সূত্র আবিষ্কারক বলা হয়। তিনি গনিত শাস্ত্রের বৃদ্ধি ও উৎকর্ষ সাধনের জন্য আলজেব্রা ও জ্যামিতির উপর বিভিন্ন গবেষণা করেন এবং অসংখ্য বই রচনা করেন। এছাড়া তিনি কলকাতায় কে.পি বসু পাবলিশিং কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন।

কিভাবে যাবেন

ঢাকার গাবতলী থেকে রয়েল, সোনার তরী, এসবি পরিবহণ, জেআর পরিবহণ, চুয়াডাঙ্গা, হানিফ, দর্শনা ও পূর্বাশা ডিলাক্স বাসে ঝিনাইদহ যাওয়া যায়। ঝিনাইদহ জেলা থেকে স্থানীয় যানবাহনে কে পি বসুর বাড়ি যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

ঝিনাইদহ শহরে হোটেল রাতুল, হোটেল রেডিয়েশন, হোটেল জামান, নয়ন হোটেল, হোটেল ড্রিম ইন ও ক্ষণিকা প্রভৃতি আবাসিক হোটেল ও রেস্ট হাউজ রয়েছে।

কোথায় খাবেন

ঝিনাইদহ শহরের পায়রা চত্বরের কাছে অবস্থিত ক্যাফে কাশফুল, কস্তুরি হোটেল,অজয় কিচেন, লিজা ফাস্ট ফুড, ইং কিং চাইনিজ, রূপসী বাংলা রেস্তোরা, সুইট হোটেল ও আহার রেস্তোরাঁ অন্যতম।

ঝিনাইদহ জেলার দর্শনীয় স্থান

ঝিনাইদহের অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে বারোবাজার, নলডাঙ্গা রাজবাড়ী রিসোর্ট, মিয়ার দালান ও জোহান ড্রিম ভ্যালী পার্ক উল্লেখযোগ্য।

ফিচার ইমেজ: বিডি লাক্সারি

ম্যাপে কে পি বসুর বাড়ি

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।