কালীগঞ্জের নলডাঙ্গার জমিদার কালী পোদ্দার ঐতিহাসিক যশোর রোড (Jessore Road) নির্মাণ করেন। বিভিন্ন ঐতিহাসিক সূত্রমতে, জমিদার কালী পোদ্দারের মা যশোদা দেবী সড়ক পথে গঙ্গাস্নানের ব্রত নেন। এমতাবস্থায় জমিদার তাঁর মায়ের ইচ্ছা পুরণের উদ্দেশ্যে যশোরের কালীগঞ্জ থেকে বর্তমান ভারতের কলকাতার গঙ্গা তীরের কালীঘাট পর্যন্ত সড়কপথ নির্মাণ করেন। কিন্তু রাস্তার নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হলেও রাজমাতা যশোদা দেবী প্রখর রোদ ভ্রমণের অস্বীকৃতি জানান। পরবর্তীতে যশোদা দেবীর পরামর্শক্রমে সড়কের দুই পাশে রেন্ট্রি/কড়ই গাছ রোপণ করা হয়। রাজমাতা যশোদা দেবীর নামানুসারে রাস্তাটিকে যশোর রোড নামকরণ করা হয়। শতবর্ষী সেই সব গাছ আজো যশোর রোডের শোভা বর্ধন করে আসছে।

১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধের সময় শত শত শরনার্থী এই যশোর রোডের দুইপাশে আশ্রয় নেয়। শরনার্থীদের দুঃখ-দুর্দশা দেখে মার্কিন কবি অ্যালান গিনসবার্গ সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড নামে একটি কবিতা লিখেন। পরবর্তীতে ভারতীয় গায়িকা মৌসুমি ভৌমিক এই কবিতার বঙ্গানুবাদ করে গান রচনা করেন।

কিভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকা থেকে বাস কিংবা ট্রেনে চড়ে যশোর আসা যায়। যশোর থেকে বেনাপোলগামী ৭০ কিলোমিটার দীর্ঘ রোডটিই যশোর রোড নামে পরিচিত। তাই যশোর থেকে বেনাপোল যাত্রা পথের সবটুকু সময় যশোর রোডের সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

যশোরে বা বেনাপোলে বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেল আছে। এদের মধ্যে হোটেল সিটি প্লাজা ইন্টারন্যাশনাল, হোটেল হাসান ইন্টারন্যাশনাল, জাবির ইন্টারন্যাশনাল হোটেল, হোটেল আর.এস ইন্টারন্যাশনাল, হোটেল শামস ইন্টারন্যাশনাল ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

কোথায় খাবেন

যশোরের বিখ্যাত জামতলার মিষ্টি, খেজুরের গুড়ের প্যারা সন্দেশ ও ভিজা পিঠা খেয়ে দেখতে পারেন। সুযোগ থাকলে ধর্মতলার মালাই চা এবং চুক নগরের বিখ্যাত চুই ঝাল খাবারের স্বাদ নিন।

ফিচার ইমেজ: রাজু

ম্যাপে যশোর রোড

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।