বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতুর কাছে যমুনা নদীর পূর্ব পাশে গড়ে উঠেছে থ্রি স্টার মানের যমুনা রিসোর্ট (Jamuna Resort)টাংগাইলসিরাজগঞ্জ জেলার মাঝামাঝি স্থানে এই রিসোর্টি অবস্তিত। যমুনা রিসোর্টে রয়েছে জিম, হেলথ ক্লাব, সুইমিংপুল, বেকারি, ফরেন মানি এক্সচেঞ্জ এবং স্যুভেনির শপ। খেলাধুলার সুবিধা হিসাবে এখানে ফুটবল, হকি, ক্রিকেট, ব্যাডমিন্টন ও দাবার ব্যবস্থা আছে। থাকার জন্য যমুনা রিসোর্টে রয়েল সুইট, ডিলাক্স এক্সিকিউটিভ সুইট, ২ ও ৩ বেডরুমের কটেজ, ডরমিটরি এবং এক্সট্রা বেড সুবিধা রয়েছে।

যমুনা রিসোর্টে একসাথে ১৫০ জন বসে খাবার গ্রহনের একটি রেস্টুরেন্ট রয়েছে। এই রেস্টুরেন্টে সকাল, দুপুর এবং রাতের খাবারের ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে যমুনা ও ব্রহ্মপুত্র নামে দুইটি হলরুম আছে। প্রত্যেকটি হলরুম ২০০ মানুষের ধারণক্ষমতা সম্পন্ন। এছাড়া যমুনা রিসোর্টে নৌভ্রমণ ও রিসোর্টের সাইট ভ্রমণের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

যমুনা রিসোর্টের প্যাকেজ

বিশেষ উৎসব যেমন ঈদ, পহেলা বৈশাখ এবং থার্টিফার্স্ট নাইটে এখানে বিভিন্ন প্যাকেজ চালু থাকে। যার মাথাপিছু খরচ নির্ধারন করা হয় প্যাকেজভেদে ৪০০০ থেকে ৫০০০ টাকা। এছাড়া পিকনিক, গেট টুগেদার, ডিজে পার্টি এবং অফিসিয়াল অনুষ্ঠানের জন্য যমুনা রিসোর্টে সকল ব্যবস্থা রয়েছে। যেখানে ৫০ থেকে ৫০০ জনের অনুষ্ঠান আয়োজন করা যায়। কর্পোরেট প্যাকেজের খরচ ১,৫০,০০০ টাকা থেকে ১২,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত হতে পারে।

কিভাবে যাবেন যমুনা রিসোর্ট

ঢাকার গাবতলী ও মহাখালী থেকে টাঙ্গাইলের বাসে কম খরচে যমুনা রিসোর্টে যাওয়া যায়। কমলাপুর কিংবা বিমানবন্দর রেল স্টেশন থেকে বঙ্গবন্ধু সেতুর আগের স্টেশনে থামে এমন ট্রেনে করে আসতে পারবেন। রেল স্টেশন থেকে পায়ে হেটে কিংবা রিকশা যোগে যমুনা রিসোর্টে যেতে পারবেন।
এছাড়া বাসে করে ভূঞাপুর উপজেলা গেইট নেমে সেখান থেকে সিএনজি কিংবা রিক্সা ভাড়া করে যমুনা সেতু সংলগ্ন যমুনা রিসোর্ট আসতে পারবেন।

যমুনা রিসোর্ট যোগাযোগ

কর্পোরেট অফিস: প্রগতি ইন্স্যুরেন্স ভবন (৭ম তলা) ২০-২১, কাওরান বাজার, ঢাকা ১২১৫, বাংলাদেশ
মোবাইল: 01715-852997, 994620, 01819-404902, 01715–331998, 01715–550995
ফ্যাক্স: 88-02-9141391

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।