বাংলাদেশের বাণিজ্যিক নগরী চট্টগ্রামের আগ্রাবাদের এস এম মোরশেদ সড়কে গড়ে তোলা হয়েছে আধুনিক জাম্বুরি পার্ক (Jamburi Park)। ২০১৮ সালের আগে প্রায় সাড়ে ৮ একর আয়তনের এই জায়গাটি পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল। সোনালু, নাগেশ্বর, চাঁপা, রাধাচূড়া, চাঁপা, বকুল, শিউলি, সাইকাস, টগর, জারুল ইত্যাদি গাছ ছাড়াও জাম্বুরি পার্কে প্রায় ৬৫ প্রজাতির ১০ হাজার গাছের চারা রোপন করা হয়েছে। আর দর্শনার্থীদের হাঁটার জন্য সবুজ ঘাসে মোড়া এই পার্কে রয়েছে ৮ হাজার ফুট রাস্তা।

দৃষ্টিনন্দন লেক এবং বর্ণিল জলের ফোয়ারা নির্মাণের ফলে সন্ধ্যায় আলো আধারীর মেলবন্ধনে এক চমৎকার দৃশ্যের অবতারণা হয় তখন পার্কটি সবচেয়ে বেশি সুন্দর লাগে। পার্কে প্রবেশের জন্য উত্তর ও দক্ষিণ পাশে দুইটি করে মোট ৪ টি এবং পশ্চিম ও পূর্ব পাশে একটি করে মোট দুইটি গেট রয়েছে। আর পার্কের উত্তর-পূর্ব ও দক্ষিন-পশ্চিম কোণে রয়েছে দুইটি শৌচাগার।

শরীর চর্চা ও প্রাকৃতিক মনোরম পরিবেশে সময় কাটানোর উদ্দেশ্যে জাম্বুরি পার্ক নির্মাণ করা হলেও ছুটির দিন গুলোতে এখানে উপচে পড়া ভিড় হয়ে থাকে। সুন্দর গুছানো পরিবেশ, লেক, নানান প্রজাতির গাছ এবং রঙ বেরঙের আলোক সজ্জার জন্য জাম্বুরি পার্ক বর্তমানে ছোট বড় সবার কাছে একটি আকর্ষণীয় স্থানে পরিণত হয়েছে।

প্রবেশমূল্য ও সময়সীমা

জাম্বুরি পার্ক প্রতিদিন সকাল থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত খোলা থাকে। তবে বিকাল ৪ টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এখানে ভিড় বেশী হয়। পার্কে প্রবেশ করতে কোন টিকেটের প্রয়োজন হয় না।

জাম্বুরি পার্ক কিভাবে যাবেন

জাম্বুরি পার্ক যাওয়ার জন্য প্রথমে চট্টগ্রাম আসতে হবে। ঢাকা থেকে বাস, ট্রেন বা গাড়িতে চট্টগ্রাম যেতে পারবেন। ঢাকার সায়দাবাদ, গাবতলি বা মহাখালি থেকে দেশ ট্র্যাভেলস, তুবা লাইন, সোহাগ পরিবহন, গ্রিন লাইন, এনা, ইউনিক, শ্যামলী, ঈগল, রয়েল কোচ সহ বিভিন্ন বাস প্রতিদিন ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে যাতায়াত করে।

এছাড়া কমলাপুর বা বিমান বন্দর রেলস্টেশন থেকে সুবর্ন এক্সপ্রেস, মহানগর প্রভাতি বা সোনার বাংলা এক্সপ্রেসের মতো আন্তঃনগর ট্রেনে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যেতে পারবেন। আর কম সময়ে যাওয়ার জন্য বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, নভোএয়ার, রিজেন্ট এয়ারলাইন্স এবং ইউ এস বাংলা এয়ারলাইন্সের বিভিন্ন ফ্লাইটে ৪৫ মিনিটে চট্টগ্রাম পৌঁছাতে পারবেন।

চট্টগ্রাম পৌঁছে সিএনজিতে সহজেই জাম্বুরি পার্ক যেতে পারবেন। বাসে যেতে চাইলে আগ্রাবাদগামী কোন বাসে বাদামতল মোড়ে নেমে পায়ে হেঁটে বা রিকশায় জাম্বুরি পার্ক যাওয়া যায়।

কোথায় থাকবেন

চট্টগ্রাম শহরে থাকার জন্য প্রায় সকল ধরণ ও মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে। শহরের যেকোন জায়গাতেই আপনার বাজেট এবং পছন্দমত হোটেল পাবেন। স্টেশন রোড, জিএসসি মোড় কিংবা আগ্রাবাদ এলাকায় থাকার জন্যে ১০০০-৫০০০ টাকা ভাড়ার বিভিন্ন মানের হোটেল আছে। এছাড়া সরকারি কর্মকর্তাদের কম খরচে থাকার জন্য আছে সার্কিট হাউজ, জেলা পরিষদের রেস্ট হাউজ ও বন বিভাগের রেস্ট হাউজ।

পার্কের কিছু নিয়ম কানুন

  • জাম্বুরি পার্কের ভিতরে খাবার নিয়ে প্রবেশ করা যায় না।
  • পার্কের গাছগুলোর কোনরূপ ক্ষতি (ডাল ভাঙ্গা, ফুল ছেঁড়া ইত্যাদি) করা যাবে না।
  • পার্কের লেকের পানিতে ময়লা ফেলা বা গোসল করা যাবে না।

ফিচার ইমেজ : ফোকাস বাংলা

ম্যাপে জাম্বুরি পার্ক

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।