করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে আগামী কিছুদিন কোথাও ভ্রমণ থেকে বিরত থাকুন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন ও সচেতন থাকুন। করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত সকল তথ্য জানতে এখানে ক্লিক করুন

পিরোজপুর (Pirojpur) জেলার ভাণ্ডারিয়া উপজেলার তেলিখালী ইউনিয়নে কঁচা নদীর তীরে ২০১৪ সালে ৬ একর জায়গার উপর হরিণপালা রিভার ভিউ ইকোপার্ক (Horinpala River View Eco Park) গড়ে তোলা হয়েছে। নদীর ঢেউ, কাশবন, পাখির কলকাকলীতে মুখর চমৎকার এই পার্কে রয়েছে নান্দ্যনিক ফোয়ারা, ওয়াচ টাওয়ার, পশুপাখির ভাস্কর্য, ঘোড়ার গাড়ি, টয় ট্রেন এবং বিভিন্ন আকর্ষণীয় রাইড। আরও আছে সুবিশাল পুকুরে নৌকায় চড়ে বেড়ানোর সুযোগ।

হরিণপালা রিভার ভিউ ইকোপার্কের পাশে ৭৪ একর জায়গা জুড়ে হরিণ ও পাখির অভয়ারণ্য গড়ে তোলা হয়েছে, যা ইকোপার্কের সৌন্দর্য আরো বহুগুণ বাড়িয়ে তোলেছে। পার্কের রেস্টুরেন্টে আছে বাংলা চাইনিজ সহ বাহারি খাবারের আয়োজন। আর দর্শনার্থীরা চাইলে পার্কটিতে রাত্রিযাপন করতে পারেন।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে সড়ক ও নৌপথে পিরোজপুর জেলায় যাওয়া যায়। গাবতলী এবং সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে বিভিন্ন পরিবহনের বাস নিয়মিতভাবে পিরোজপুরের পথে যাত্রা করে। গাবতলী থেকে সাকুরা পরিবহন (02-8021184) ও ঈগল পরিবহনের (01712-543907) বাস প্রতিদিন পিরোজপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। আর সায়েদাবাদ বাসস্টান্ড থেকে দোলা পরিবহন (01739-612299), হামিম পরিবহন এবং বনফুল পরিবহনসহ বেশকিছু বাস সার্ভিসের বাস ঢাকা-পিরোজপুর রুটে চলাচল করে।

ঢাকার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭ টায় রাজদূত/পারাবত এবং রাত ৯ টায় স্টীমার অস্ট্রি্চ লঞ্চ পিরোজপুরের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে।

পিরোজপুর অথবা বরিশাল জেলা হতে মঠবাড়িয়াগামী গাড়ি করে তুষখালী নামক স্থানে নেমে রিকশা, মোটরসাইকেল এবং অটো রিকশার মত স্থানীয় পরিবহণে চরে হরিণপালা রিভার ভিউ ইকোপার্ক যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

পিরোজপুর জেলায় রাত্রি যাপনের জন্য মোটামুটি মানের বেশকিছু আবাসিক হোটেল রয়েছে। এদের মধ্যে হোটেল রিল্যাক্স, হোটেল রজনী, হোটেল অবকাশ, হোটেল ডালাস, হোটেল সিনথিয়া, হোটেল আল মদীনা উল্লেখযোগ্য।

ফিচার ইমেজ: এনামুল হক বাপ্পি

ম্যাপে হরিণপালা রিভার ভিউ ইকোপার্ক

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।