হার্ডিঞ্জ ব্রীজ (Hardinge Bridge) পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশী ও কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার বিভাজনকারী পদ্মা নদীর উপর নির্মিত একটি রেল সেতু। ১৯১৫ সালে ৪ মার্চ ভাইসরয় লর্ড হার্ডিঞ্জ এই সেতুর উদ্বোধন করেন। লর্ড হার্ডিঞ্জ এর নামনুসারে ব্রিজটিকে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ ডাকা হয়। ভারত উপমহাদেশের রেল যোগাযোগে সহজতর করতে ১৮৮৯ সালে পদ্মা নদীর ওপর রেল সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রীজের ভিত স্থাপন করা হয়েছে পানির সর্বনিম্ন সীমা থেকে প্রায় ১৬০ ফুট মাটির গভীর পর্যন্ত। এই ব্রিজের ১৫ নম্বর স্তম্ভের কুয়া পানি নিম্নসীমা থেকে ১৫৯.৬০ ফুট এবং সর্বোচ্চ সীমা থেকে ১৯০.৬০ ফুট নীচে স্থাপন করা হয়েছে।

তৎকালীন সময়ে এ ধরনের স্থাপনার মধ্যে পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রীজই ছিল সবচেয়ে গভীরতম স্থাপনা। ব্রীজটির নান্দ্যনিকতার জন্য ব্রিটিশ ইন চীফ ইঞ্জিনিয়ার রবার্ট উইলিয়াম গেইলসকে সন্মানসূচক ‘স্যার’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়। হার্ডিঞ্জ ব্রিজের পাশেই নির্মিত হয়েছে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম লালন শাহ সেতু। পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রিজ কেন্দ্রিক পদ্মার চারপাশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যকে ঘিরে বিভিন্ন রিসোর্ট ও পিকনিক স্পট গড়ে তোলা হয়েছে।

হার্ডিঞ্জ ব্রীজ যাওয়ার উপায়

দেশের যেকোন প্রান্ত থেকে সড়ক কিংবা রেল পথে ঈশ্বরদী রেলওয়ে স্টেশন অথবা ঈশ্বরদী বাস স্ট্যান্ড হতে রিক্মা, টেম্পু, সিএনজি দিয়ে পাকশী রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন পাকশী হার্ডিঞ্জ ব্রীজ যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

পাবনায় থাকার জন্য বেশকিছু বিভিন্ন মানের এসি, নন-এসি আবাসিক হোটেল পাবেন। প্রয়োজনে নিচের হোটেলগুলোতে যোগাযোগ করতে পারেন:
হোটেল প্রবাসী ইন্টার ন্যাশনাল, ফোন: +৮৮ ০১৭৪৯১৪৮৬৮৫। হোটেল শিলটন, ফোন: ০৭৩১-৬২০০৬, ১৭১২-৪৩৩২৪৯। হোটেল পার্ক, ফোন: ০৭৩১-৬৪০৯৬। প্রাইম গেস্ট হাউস, ফোন: ০৭৩১ -৬৫৭০১, ০৭৩১-৬৬৯০১। স্বাগতম হোটেল এন্ড চাইনিজ রেস্টুরেন্ট, ফোন: ০৭৩১ -৬৪০২৯, ০৭৩১-৬৫৮৬১। ছায়ানীড় হোটেল, ফোন: ০৭৩১-৬৬১০০, ০৭৩১-৬৫৩৯০। মিড নাইট মুন চাইনিজ রেস্টুরেন্ট, ফোন: ০৭৩১ -৬৫৭৮৭।

কোথায় খাবেন

পাবনা আব্দুল হামিদ রোডে বেশ কিছু খাবার হোটেল রয়েছে এর মধ্যে স্বাগতম হোটেল এন্ড চাইনিজ রেস্টুরেন্ট, ছায়ানীড়, মিড নাইট মুন চাইনিজ রেস্টুরেন্ট উল্লেখযোগ্য।

ম্যাপে হার্ডিঞ্জ ব্রীজ

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।