ফরিদপুর জেলা শহরের গোয়ালচামট নামক স্থানে প্রায় ১৪ একর জায়গাজুড়ে ওয়ান্ডারল্যান্ড এবং ফরিদপুর পৌরসভার যৌথ উদ্যোগে ফরিদপুর পৌর শেখ রাসেল শিশুপার্ক (Faridpur Poura Sheikh Rasel Shishu Park) নির্মাণ করা হয়েছে। ২০১৪ সালে নির্মিত পৌর শেখ রাসেল শিশুপার্কটিতে আছে চলন্ত ট্রেন, ভূতুরে গুহা, ওয়ান্ডার হুইল, সুইং কেয়ার, প্যারাট্যুপার, বোট রাইডিং সহ ৩০ টিরও অধিক আকর্ষণীয় রাইড, লেক, মিনি চিড়িয়াখানা, ভিডিও গেমস, ফুড কর্ণার এবং পিকনিক স্পট।

এছাড়া আইফেল টাওয়ার, স্ট্যাচু অব লিবার্টির রেপ্লিকা, ডায়নোসর এবং পান্ডা সহ নান্দ্যনিক বিভিন্ন ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে পার্কটিতে। আর মিনি চিড়িয়াখানায় আছে হরিণ, খরঘোস, বানর, ময়ুর সহ দেশি বিদেশি নানা জাতের পশুপাখি। বৈশিষ্ট্যের স্বকীয়তায় ফরিদপুর পৌর শেখ রাসেল শিশুপার্ক বর্তমানে জেলাবাসীর কাছে অন্যতম জনপ্রিয় বিনোদন মাধ্যমে পরিণত হয়েছে।

পার্কের সময়সূচী ও প্রবেশ টিকেটের মূল্য

সপ্তাহের ৭ দিন সকাল ১০ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত পার্কটি সকল বিনোদনপ্রেমীদের জন্য উন্মুক্ত থাকে। ফরিদপুর পৌর শেখ রাসেল শিশুপার্কের জনপ্রতি প্রবেশের টিকেট মূল্য ৫০ টাকা হলেও প্রবেশ মূল্যের সাথে মিনি চিড়িয়াখানার টিকেটের মূল্য ২০ টাকা যুক্ত করে প্রবেশ মূল্য ৭০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। আর পার্কের প্রতিটি রাইডে চড়তে জনপ্রতি ৪০ টাকা খরচ করতে হয়।

কিভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকা থেকে ফরিদপুর জেলায় যাওয়ার জন্য সড়ক পথই সবচেয়ে সুবিধাজনক। ঢাকা হতে সরাসরি ফরিদপুরগামী বাস সার্ভিস চালু আছে। গাবতলী বাস স্ট্যান্ড হতে গোল্ডেন লাইন ও সাউথ লাইনের বাস ফরিদপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

ফরিদপুর জেলা শহরের যেকোন জায়গা হতে রিক্সা কিংবা অটো নিয়ে নতুন বাস স্ট্যান্ডের কাছে অবস্থিত ফরিদপুর পৌর শেখ রাসেল শিশুপার্ক যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

ফরিদপুর শহরে থাকার জন্যে মোটামুটি মানের বেশ কয়েকটি আবাসিক হোটেল আছে। তার মধ্যে একটু বেশি বাজেটের জনতার মোড়ে হোটেল র‍্যাফেলস (Hotel Raffles), কম বাজেটের মধ্যে ভাল হলো মুজিব সড়কের জেকে ইন্টারন্যাশনাল (J K International), পদ্মা হোটেল (Padma Hotel), হোটেল ঝিলভিউ ইত্যাদি।

আর কি দেখবেন

ফরিদপুর জেলার অন্যান্য দর্শনীয় ও ঐতিহাসিক স্থান গুলো হলো; পল্লী কবি জসীমউদ্দীনের বাড়ি, নদী গবেষনা ইনষ্টিটিউট, হযরত শাহ ফরিদ মসজিদ, জগদ্বন্ধু সুন্দর এর আশ্রম, আটরশি বিশ্ব জাকের মঞ্জিল, বাইশ রশি জমিদার বাড়ী, সদরপুরসাতৈর মসজিদ, মথুরাপুরের দেউল, পাতরাইল মসজিদ ইত্যাদি।

ফিচার ইমেজ : রাকিবুল হাসান

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।