করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে আগামী কিছুদিন কোথাও ভ্রমণ থেকে বিরত থাকুন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন ও সচেতন থাকুন। করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত সকল তথ্য জানতে এখানে ক্লিক করুন

নেত্রকোণা জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত ডিঙ্গাপোতা হাওর (Dingapota Haor) দেশের বৃহত্তম হাওরগুলোর মধ্যে অন্যতম। ঋতুভেদে ভিন্ন ভিন্ন নবরূপে এই হাওরের সৌন্দর্য ফুটে উঠে। বর্ষাকালে হাওরের অথৈ জলের ধারা, শুষ্ক মৌসুমে চারপাশের নয়নাভিরাম সৌন্দর্য সবকিছুই প্রকৃতিপ্রেমী দর্শনার্থীদের মোহিত করে। তবে সকল মৌসুমেই হাওরের বিশাল জলরাশির গভীরতম স্থানে থাকা আধডোবা হিজল গাছ, জলরাশির উচ্ছল ঢেউ ও নীল আকাশের মিতালী চোখে পরে। বিশেষ করে শরৎ ও হেমন্তকালে হাওরের দুপাড়ের সবুজ সোনালি ধানক্ষেত ও নীলচে আকাশের সৌন্দর্য দর্শনার্থীদের সবচেয়ে বেশী আকর্ষণ করে।

এছাড়া মাছের মৌসুমে হাওরের পাড়ে জেলেদের পরিবার নিয়ে অস্থায়ী আবাসস্থল গুলো কাছ থেকে হাওরের জেলেদের জীবনযাপন দেখার সুযোগ করে দেয়। এখান থেকে ইচ্ছে হলে হাওরের বিভিন্ন তাজা মাছ কিনে নেয়া যায়। প্রকৃতির দানে অপরূপ ডিঙ্গাপোতা হাওর নেত্রকোনা জেলার পর্যটন শিল্পে এক বিপুল সম্ভাবনার দুয়ার উন্মোচন করেছে।

কিভাবে যাবেন

ঢাকার মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে বিভিন্ন পরিবহণের বাসে নেত্রকোনা যাওয়া যায়। আর রেলপথে, কমলাপুর রেলওয়ে ষ্টেশন থেকে হাওর এক্সপ্রেস বা মোহনগঞ্জ ট্রেনে সরাসরি মোহনগঞ্জ পৌঁছাতে পারবেন। মোহনগঞ্জ হতে অটো বা লেগুনা নিয়ে তেতুলিয়া ঘাট গিয়ে ট্রলারে চেওএ ডিঙ্গাপোতা হাওর ঘুরতে পারবেন।

কোথায় খাবেন

মোহনগঞ্জে হাওর ইন, হোটেল শাপলা ইত্যাদি আবাসিক হোটেল রয়েছে। এছাড়া নেত্রকোনার বিরিশিরি ও দূর্গাপুরে হোটেল আল নুর, সৌরভ হোটেল, হোটেল চন্দন, হোটেল নিরালা ও হোটেল মদিনায় রাত্রিযাপন করতে পারবেন।  

কোথায় খাবেন

আপনার রিজার্ভ নেয়া ট্রলারের মাঝির সাথে রান্না করে খেতে পারবেন। এছাড়া মোহনগঞ্জে অবস্থিত হাওর ইনে খাবার খেতে পারেন। আর অবশ্যই নেত্রকোনার বালিশ মিষ্টির স্বাদ নিতে ভুল করবেন না।

নেত্রকোনার দর্শনীয় স্থান

নেত্রকোনার দর্শনীয় স্থানের মধ্যে কমলারাণী দীঘি, সাত শহীদের মাজার, সোমেশ্বরী নদী, বিরিশিরি ও চিনামাটির পাহাড় অন্যতম।

ছবি: সংগ্রহ

ম্যাপে ডিঙ্গাপোতা হাওর

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।