দিনাজপুর শহরের খুব কাছে অবস্থিত দিনাজপুর রাজবাড়ী (Dinajpur Rajbari) অত্র জেলার ইতিহাস ও ঐশ্বর্যের প্রতীক হিসাবে পরিগণিত হয়ে আসছে। ১৯৫১ সালে জমিদারী প্রথার বিলুপ্তির পর থেকে দিনাজপুর রাজবাড়ীর জৌলুশে ভাটা পড়তে থাকে। দিনাজপুর রাজবাড়ীর সর্বশেষ জমিদার জগদীশনাথ ১৯৬২ খ্রিস্টাব্দে কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন। বর্তমানে এই রাজবাড়িটি কালের সাক্ষী হিসাবে টিকে আছে।

দিনাজপুর রাজবাড়ীর বিভিন্ন স্থাপনার মধ্যে আছে কুমার মহল, আয়না মহল, রাণী মহল, লক্ষ্মী ঘর, আটচালা ঘর, ঠাকুর বাড়ী, কালীয়া জিউ মন্দির, আতুর ঘর, রাণী পুকুর, চাঁপা তলার দিঘী ইত্যাদি। এছাড়া এই জমিদার বাড়ি হতে প্রাপ্ত রাজ বংশের ব্যবহৃত বিভিন্ন ঐতিহাসিক নিদর্শন ঢাকাস্থ জাতীয় জাদুঘর ও দিনাজপুর মিউজিয়ামে সংরক্ষিত রয়েছে।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে বাস এবং ট্রেনে দিনাজপুর যাওয়া যায়। ঢাকার গাবতলী ও কল্যাণপুর হতে দিনাজপুরগামী বাস চলাচল করে। বাস সার্ভিসের মধ্যে নাবিল পরিবহন, এস আর ট্রাভেলস, এস এ পরিবহন, হানিফ এন্টারপ্রাইজ, কেয়া পরিবহন, শ্যামলী পরিবহন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। নন-এসি এবং এসি বাস ভাড়া মানভেদে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকা।

ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে আন্তঃনগর দ্রুতযান ও একতা এক্সপ্রেস ট্রেন সন্ধ্যা ৭ টা ৪০ মিনিট এবং সকাল ৯ টা ৫০ মিনিটে দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। একতা এবং দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন যথাক্রমে মঙ্গল ও বুধবার বন্ধ থাকে। শ্রেনীভেদে ট্রেনের টিকেট কাটতে জনরপতি ১৮৫ থেকে ৯০০ টাকা লাগে।

দিনাজপুর জেলা শহর থেকে অটোরিকশা নিয়ে সরাসরি দিনাজপুর রাজবাড়ীতে যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

দিনাজপুর শহরে ভাল মানের হোটেলে থাকতে চাইলে পর্যটন মোটেলে (0531-64718) যোগাযোগ করতে পারেন। পর্যটন মোটেলে রাত্রিযাপনের জন্য রুম ভেধে ভাড়া লাগবে ১৫০০ থেকে ২২০০ টাকা। দিনাজপুরে অবস্থিত অন্যান্য আবাসিক হোটেলের মধ্যে হোটেল ডায়মন্ড, নিউ হোটেল, হোটেল আল রশিদ, হোটেল রেহানা, হোটেল নবীন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

কোথায় খাবেন

দিনাজপুরে রুস্তম, ফাইভ স্টার, দিলশাদ হোটেলে গরুর ভুনা মাংস, কাঠি কাবাব এবং দিলশাদ রেস্তোরাঁর পাটিসাপটা খেয়ে দেখতে পারেন। এছাড়া পুলাহাট বিসিক এলাকায় আবুল হোটেলে ভাত, গরু কিংবা মুরগির মাংস, ডাল আর সবজি দিয়ে আহার সেরে নিতে পারেন।

ফিচার ইমেজ: মনন দে

ম্যাপে দিনাজপুর রাজবাড়ী

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।