হাওরের কথা আসলেই আমাদের মনে সুনামগঞ্জ, সিলেট কিংবা কিশোরগঞ্জের ছবি ভেসে উঠে। কিন্তু ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় সৌরভ বিলিয়ে থাকা হাওর সম্পর্কে অনেকেরই তেমন জানাশুনা নেই। ধরন্তি হাওর (Dhoronti Haor) তেমনি এক অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ধারণকারী জলাভূমির নাম। নৈসর্গিক ধরন্তি হাওরের পূর্ব দিকে তিতাস নদী এবং পশ্চিমে মেঘনা নদী সহ ছোট বড় আরও বেশকিছু খাল-বিল রয়েছে।

হাওরের উপর দিয়ে চলে গেছে সরাইল-নাসিরনগর সড়ক। বৈশাখ থেকে আশ্বিন মাস পর্যন্ত যখন হাওর অথৈ জলে ভরে থাকে তখন এই সড়কের দুইপাশে প্রতিদিন অসংখ্য দর্শনার্থী ভিড় করে প্রকৃতিকে উপভোগ করেন। হাওরের বুকে অপূর্ব সূর্যাস্থের দৃশ্য দেখে অনেকে আবার ধরন্তিকে মিনি কক্সবাজার নামে অভিহিত করেন। আগত দর্শনার্থীদের হাওরে জলে ঘুরে বেড়ানোর সুবিধার জন্য এখানে ভাড়ায় চালিত ছোট ডিঙ্গি নৌকা ও স্পিডবোটের ব্যবস্থা রয়েছে।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা হতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার (Brahmanbaria) সরাইল উপজেলায় অবস্থিত ধরন্তি হাওরে যেতে তিন থেকে সাড়ে তিন ঘন্টা সময় লাগে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার থেকে ধরন্তি হাওরের দূরত্ব প্রায় ৩৫ কিলোমিটার। ঢাকার সায়েদাবাদ কিংবা যাত্রাবাড়ি থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রুটে চলাচলকারী বাসে সরাইল বিশ্বরোড যাওয়া যায়। সরাইল বিশ্বরোড থেকে ধরন্তি যাওয়া অটোরিক্সা ও সিএনজি রয়েছে।

এছাড়া ট্রেনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এসে সিএনজিতে চড়ে সরাইল বিশ্বরোড যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

ঢাকা হতে চাইলে দিনে গিয়ে রাতের মধ্যে ধরন্তি হাওর দেখে ফিরে আসতে পারবেন। প্রয়োজনে রাত্রিযাপনের জন্য ভালো মানের হোটেলের সন্ধান পেতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদরে আসতে হবে। এছাড়া নাসিরনগরে ডাক বাংলোতেও রাতে থাকার সুযোগ রয়েছে। আর সরাইল বিশ্বরোডে সাধারণ মানের থাকার ব্যবস্থা রয়েছে।

ফিচার ইমেজ : লোনলি ট্রাভেলার

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।