বাংলাদেশ-ভারত আন্তঃসীমান্ত নদীর নাম ধরলা। ধরলা নদীর উত্তর-পশ্চিম পাড়ে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড কতৃক একটি পার্ক গড়ে তোলা হয়েছে। আর দক্ষিণ পাড়ে রয়েছে একটি সবিশাল মাঠ, যা মদনের মাঠ নামে পরিচিত। কুড়িগ্রামের কাছে ধরলা ও ব্রহ্মপুত্র নদ একত্রে মিলিত হয়েছে। কুড়িগ্রামের সাথে নাগেশ্বরী ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলার যোগাযোগ রক্ষার উদ্দেশ্যে ধরলা নদীর উপর একটি সেতু নির্মাণ করা হয়। এই সেতুটিই ধরলা ব্রিজ (Dhorla Bridge) নামে সুপরিচিত। বিকেল বেলা প্রাণবন্ত সময় কাটানো, নৌকা ভ্রমণ কিংবা সূর্যাস্তের দৃশ্য দেখার জন্য ধরলা ব্রিজ এলাকায় অসংখ্য দর্শনার্থীর আগমন ঘটে।

এছাড়া লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট এবং ফুলবাড়ীর শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের রামপ্রসাদ এলাকায় ধরলা নদীর উপর আরো একটি সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। যা শেখ হাসিনা ধরলা সেতু বা দ্বিতীয় ধরলা সেতু নামে পরিচিত। ২০১৪ সালের দ্বিতীয় ধরলা ব্রিজের নির্মাণ কাজ শুরু হয়ে ২০১৮ সালের জুন মাসে তা শেষ হয়। ৯৫০ মিটার দৈর্ঘ্য এবং ৯.৮০ মিটার প্রস্থের ২য় ধরলা সেতুতে সর্বমোট ১৯টি স্প্যান রয়েছে। প্রথম ধরলা ব্রিজের দৈর্ঘ্য ৬৪৮ মিটার।

যেভাবে যাবেন

ধরলা ব্রিজ যেতে হলে প্রথমে কুড়িগ্রাম জেলায় আসতে হবে। রাজধানীর ঢাকার আসাদগেট, কল্যাণপুর অথবা গাবতলী বাসস্ট্যান্ড হতে কুড়িগ্রামের পথে বেশকিছু বাস চলাচল করে। বাসের মধ্যে নাবিল, হক স্পেশাল, হানিফ, এস এন ও এনা পরিবহন উল্লেখযোগ্য। এসি/নন-এসি বাসের জনপ্রতি টিকেটের দাম ৫৫০ থেকে ১০০০ টাকা। কুড়িগ্রাম বাসস্ট্যান্ড থেকে অটোরিকশা বা রিকশা ভাড়া করে সরাসরি ধরলা নদীর পাড় আসতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

কুড়িগ্রামে বেশ কিছু ভাল মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে। এদের মধ্যে হোটেল অর্ণব প্যালেস, হোটেল ডিকে ও হোটেল মেহেদি উল্লেখযোগ্য।

কোথায় খাবেন

খাবারের জন্য কুড়িগ্রামের শাপলা মোড়ে অবস্থিত নান্না বিরিয়ানি কিংবা এশিয়া হোটেলকে বেছে নিতে পারেন। এছাড়া ধরলার নদীর পাড়ে সাজুর দোকানের চা এবং চপ খেতে ভুলবেন না।

ফিচার ইমেজ: নিপুণ সরকার

ম্যাপে ধরলা ব্রিজ

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।