নওগাঁ জেলা থেকে প্রায় ৩৩ কিলোমিটার দূরে পত্নীতলা উপজেলার দিবর দীঘির মাঝখানে বাঙ্গালী আভিজাত্যের প্রতীক দিব্যক জয়স্তম্ভ (Dibar Jayastambha) বা দিবর স্তম্ভ অবস্থিত। গোলাকৃতি দিবর দীঘিতে অবস্থিত আটকোণ বিশিষ্ট গ্রানাইড পাথরের এই জয়স্তম্ভটির মোট উচ্চতা ৩১ ফুট ৮ ইঞ্চি, যার ৬ ফুট ৩ ইঞ্চি পানির নিচে এবং ২৫ ফুট ৫ ইঞ্চি পানির উপরে দৃশ্যমান। স্তম্ভতির প্রতিটি কোণের পরিধি ১ ফুট সাড়ে ৩ ইঞ্চি। দিব্যক জয়স্তম্ভের উপরের অংশটি খাঁজ কাটা মুকুটাকৃতির নানা কারুকার্যে সুশোভিত। চারপাশের মনোরম পরিবেশে অবস্থিত দৃষ্টিনন্দন এই জয়স্তম্ভটি স্থানীয়দের কাছে একটি অন্যতম দর্শনীয় স্থান হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে।

ইতিহাস
প্রায় ৬০ বিঘা জায়গার জুড়ে বিস্তৃত পাল আমলে খননকৃত দেবর দীঘি স্থানীয়দের কাছে কর্মকারের জলাশয় নামেও পরিচিত। এক ঘাট বিশিষ্ট এই দীঘির চারপাশে ধানী জমি ও উঁচু সবুজ টিলা রয়েছে। দীঘির মাঝে অবস্থিত জয়স্তম্ভটি একটি অখণ্ড পাথর কেটে নির্মাণ করা হয়েছে। জয়স্তম্ভটির স্থপতি ও নির্মাণের উদ্দেশ্য নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন মতবাদ রয়েছে। কারও মতে, দ্বিতীয় মহীপালকে পরাজিত ও হত্যা করার সাফল্যকে স্মরণীয় করার উদ্দেশ্যে, আবার কেউ কেউ মনে করেন, ভীম তার পিতার স্মৃতিরক্ষার্থে বা দিব্যকের রাজত্বকালে, পাল যুবরাজ রামপালের বরেন্দ্র অঞ্চল উদ্ধারের জন্য দিব্যকের কাছে পরাজিত হওয়ার ঘটনাকে স্মরণীয় করে রাখার লক্ষ্যে এই স্তম্ভটি নির্মাণ করা হয়। তবে দিব্যক রাজার বিজয়লাভের স্মৃতি চিহ্ন হিসেবে দিব্যক জয়স্তম্ভ অধিক পরিচিত।

কিভাবে যাবেন

ঢাকার কল্যাণপুর, গাবতলী, আব্দুল্লাহপুর থেকে এসআর, শ্যামলী, হানিফ কিংবা মৌ এন্টারপ্রাইজের এসি/নন-এসি বাসে নওগাঁ যাওয়া যায়। নওগাঁ জেলা থেকে ৫২ কিলোমিটার দূরে এবং পত্নীতলা সদর থেকে ১৩ কিলোমিটার পশ্চিমে দিবর ইউনয়নে এই জয়স্তম্ভটি অবস্থিত। নওগাঁ থেকে নজিপুর- সাপাহার হাইওয়ে দিয়ে সামনে আগালেই দিবর দীঘির দক্ষিণ পাশে দিব্যক জয়স্তম্ভ দেখতে পাওয়া যায়।

কোথায় থাকবেন

নওগাঁতে রাত্রিযাপনের জন্য বেসরকারী আবাসনের মধ্যে হোটেল প্লাবন, হোটেল যমুনা, হোটেল অবকাশ, মল্লিকা ইন, হোটেল ফারিয়াল ও হোটেল রাজ অন্যতম।

কোথায় খাবেন

পত্নীতলা উপজেলায় সাধারণ মানের বেশ কিছু খাবারের দোকান রয়েছে। এছাড়া নওগাঁর গোস্তহাটির মোড়ে খাবারের কয়েকটি ভালমানের রেস্তোরাঁ আছে।

নওগাঁ জেলার দর্শনীয় স্থান

নওগাঁ জেলার অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে আলতাদীঘি, ডানা পার্ক ও পাহারপুর বৌদ্ধ বিহার অন্যতম।

ফিচার ইমেজ: জাহিদ হাসান

ম্যাপে দিব্যক জয়স্তম্ভ

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।