চুয়াডাঙ্গা জেলা থেকে ২১ কিলোমিটার দূরে বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্তবর্তী একটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্পনগরীর নাম দর্শনা (Darshana)। ১৮৬২ সালের ১৫ই নভেম্বর দেশের প্রথম রেললাইনের কাজ শুরু হয় এই দর্শনাতে। সীমান্তবর্তী আন্তর্জাতিক মানের দর্শনা রেলওয়ে ষ্টেশন এই অঞ্চলের একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। এখান থেকেই মৈত্রী ট্রেন সরাসরি ভারতে যাতায়াত করে।

দর্শনাতে এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম চিনিকল কেরু এন্ড কোং অবস্থিত। ৩,৫৭২ একর জায়গার উপর অবস্থিত পুরো কমপ্লেক্সটি চিনি কারখানা, ডিস্টিলারি ওয়াটার, বানিজ্যিক খামার ও জৈব সার কারখানার সমন্বয়ে গঠিত। এই কারখানার প্রধান উৎপাদিত পণ্য চিনি হলেও উপজাত পণ্য থেকে স্পিরিট, হার্ড ড্রিঙ্কস এবং জৈব সার উৎপাদন করা হয়। একটি দোতালা গেস্ট হাউজ সংবলিত উন্নতমানের একটি পিকনিক স্পট হিসেবে বর্তমানে বেশ পরিচিতি লাভ করেছে কেরু এন্ড কোং।

দর্শনার স্থল ও রেল বন্দর দিয়ে ভারত ও বাংলাদেশের শত শত নাগরিক প্রতিদিন যাতায়াতসহ নানা ধরণের পণ্য আমদানী-রপ্তানি করে থাকে। দর্শনা জিরো পয়েন্টের কাছে অবস্থিত কাস্টমস চেকপোস্টের স্থায়ী অবকাঠামো বা শুল্ক ষ্টেশন দর্শনার আরেকটি উল্লেখযোগ্য স্থাপনা। এই শুল্ক ষ্টেশন থেকে সরকারী বিপুল অঙ্কের রাজস্ব আদায় হয়। এছাড়া দর্শনা থেকে মাত্র ৩১ কিলোমিটার দূরে বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী ঐতিহাসিক মুজিবনগরের অবস্থান।

কিভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকার গাবতলী কিংবা সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে শ্যামলী, পূর্বাশা, দর্শনা ডিলাক্স, চুয়াডাঙ্গা এক্সপ্রেস বা রয়েল এক্সপ্রেসে বাসে চুয়াডাঙ্গায় যেতে পারবেন। রেলপথে কমলাপুর রেলওয়ে ষ্টেশন থেকে চিত্রা বা সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে চুয়াডাঙ্গা যাওয়া যায়। চুয়াডাঙ্গা শহর থেকে দর্শনা যাওয়ার বাস ও ট্রেন রয়েছে। দর্শনা পৌঁছে রিকশা/ ভ্যানের মত স্থানীয় পরিবহণে চড়ে দর্শনা শুল্ক ষ্টেশন, কেরু এন্ড কোং ও জয়নগরে অবস্থিত ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস চেকপোস্টের মতো বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

চুয়াডাঙ্গায় সানড্রিয়াল হোটেল, হোটেল অবকাশ, হোটেল আল-আমিন, হোটেল আল মেরাজ, অন্তরাজ আবাসিক হোটেল, প্রিন্স আবাসিক হোটেল, হোটেল সোনার বাংলা এবং হোটেল সুরমা সহ বিভিন্ন আবাসিক হোটেল রয়েছে।

কোথায় খাবেন

দর্শনাতে হাল্কা চা-নাস্তা গ্রহণের ব্যবস্থা থাকলেও ভালমানের তেমন কোন খাবার হোটেল বা রেস্টুরেন্ট নেই। তবে চুয়াডাঙ্গার কলেজ রোড সংলগ্ন বেশ কিছু ভালমানের হোটেল ও রেস্টুরেন্ট আছে। সুযোগ থাকলে চুয়াডাঙ্গার কালিপদের মিষ্টির স্বাদ নিয়ে দেখতে পারেন।

চুয়াডাঙ্গার দর্শনীয় স্থান

চুয়াডাঙ্গার অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে মেহেরুন শিশু পার্ক, পুলিশ পার্ক, আট কবর ও ঘোলদাড়ী শাহী মসজিদ উল্লেখযোগ্য।

ফিচার ইমেজ: ইমন খালিদ

ম্যাপে দর্শনা

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।