শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার গান্ধিগাঁওয়ে সীমান্তবর্তী গারো পাহাড়ে জঙ্গল ঘেরা অপরুপ প্রাকৃতিক পরিবেশে আধুনিক পর্যটন স্থাপনা বনরাণী ফরেষ্ট রিসোর্ট (Bonorani Forest Resort) নির্মাণ করা হয়েছে। গজনী অবকাশ কেন্দ্র হতে এই ব্যক্তিগত মালিকানাধীন পিকনিক স্পট বনরাণী ফরেষ্ট রিসোর্ট পায়ে হেঁটে যেতে মাত্র ১০/১২ মিনিট সময় লাগে। পাহাড়ী ছড়া, সবুজ বন আর বন্য হাতির বিচরনের রোমান্চকর এই রিসোর্টে ক্যাম্প ফায়ার, BBQ ডিনার আয়োজনের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া রিসোর্টের ব্যবস্থাপনায় ৩ বেলা স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের ব্যবস্থা রয়েছে।

রিসোর্ট খরচ ও ভাড়া

বনরাণী ফরেষ্ট রিসোর্টে শুধুমাত্র ডে আউটিং করতে চাইলে খরচ লাগবে ১৫০০ টাকা। একরাতের জন্য ডাবল বেডরুমের ভাড়া ২৫০০ টাকা। একসাথে ৩ রুম অর্থাৎ সমগ্র রিসোর্ট ভাড়া নিতে লাগবে ৭০০০ টাকা। আর পিকনিকের জন্য বনরাণী ফরেষ্ট রিসোর্টের ১ রুম ৪টি বাথরুম ভাড়া নিতে ৫১৭৫ টাকা খরচ হবে।

যোগাযোগ

বনরাণী ফরেষ্ট রিসোর্ট
গজনী, ঝিনাইগাতী, শেরপুর
মোবাইল: 01716-773232

কিভাবে যাবেন

ঢাকার মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে সকাল ৯টায় একটি বাস ঝিনাইগাতী সদরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। আর এই বাসটি ঝিনাইগাতী বাজার থেকে রাত ১১টায় ঢাকার পথে ফিরে আসে। ঝিনাইগাতী বাস স্টপ হতে বনরাণী ফরেস্ট রিসোর্টের দূরত্ব মাত্র ৮ কিলোমিটার। ঝিনাইগাতী বাস স্টপ থেকে সিএনজি বা ব্যাটারী চালিত ইজিবাইকে বনরাণী ফরেস্ট রিসোর্টে পৌঁছাতে পারবেন। এছাড়া ঢাকা থেকে বাস কিংবা ট্রেনে শেরপুর জেলা হয়ে বনরানী ফরেস্ট রিসোর্টে যেতে পারবেন।

ফিচার ইমেজ: মারুফ আবিদ

ম্যাপে বনরাণী ফরেষ্ট রিসোর্ট

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।