মেহেরপুর জেলা শহর থেকে ১৪ কিলোমিটার দূরে গাংনী উপজেলার কাজলা নদীর তীরে ব্রিটিশদের নির্মম নির্যাতনের সাক্ষী হিসেবে ভাটপাড়া নীলকুঠি (Bhatpara Neelkuthi) দাড়িয়ে আছে। ১৮৫৯ সালে ২৭ একর জায়গা জুড়ে ৮০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৭০ ফুট প্রস্থ বিশিষ্ঠ এই নীলকুঠিটি নির্মাণ করা হয়।

ইট চুন সুরকি দিয়ে নির্মিত নীলকুঠির ছাদ লোহার বীম ও ইটের টালি দিয়ে তৈরি। বর্তমানে মূল ভবন ছাড়াও সাহেবদের প্রমোদ ঘর, শয়নকক্ষ, কাচারি ঘর, জেলখানা, মৃত্যুকূপ ও ঘোড়ার ঘর টিকে আছে। ভবনের সামনে রয়েছে একটি আমবাগান ও দক্ষিণ পাশে নীল কুঠির কর্মকর্তাদের প্রার্থনার জন্য গড়ে তোলা চার্চের ভগ্নাংশ। লোকে মুখে প্রচলিত রয়েছে, এখনও গভীর রাতে নীলকুঠি থেকে নর্তকীদের নূপুরের আওয়াজ ও চাষিদের আর্তনাদ শোনা যায়।

নীলকুঠির পাশ দিয়ে বয়ে চলেছে কাজলা নদী। ২০১৬ সালে সরকারী উদ্যোগে ভাটপাড়া নীলকুঠিকে পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে কৃত্রিম লেক, ঝর্ণা, বিভিন্ন পশু পাখির দৃষ্টিনন্দন মূর্তি, কিডস জোন ও আকর্ষণীয় ফুলের বাগান তৈরি করা হয়। প্রতিদিন দর্শনার্থীরা কালের সাক্ষী হিসেবে দাড়িয়ে থাকা এই ভাটপাড়া নীলকুঠির ধ্বংসাবশেষ দেখতে ও মনোরম পরিবেশে ঘুরে বেড়াতে আসেন। বর্তমানে এই নীলকুঠি বাংলাদেশ সরকারের রাজস্ব বিভাগের তত্ত্বাবধানে রয়েছে।

কিভাবে যাবেন

ঢাকার গাবতলী থেকে পদ্মা সেতু হয়ে জেআর, শ্যামলী, এস এম, রয়েল এক্সপ্রেস,  চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর ডিলাক্সে মেহেরপুর যাওয়া যায়। বাসের ভাড়া নন এসি ৬০০-৭০০ টাকা, এসি ৮০০-১৩০০ টাকা। মেহেরপুর থেকে স্থানীয় পরিবহণে ভাটপাড়া নীলকুঠিতে যেতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

মেহেরপুরে হোটেল রনি, মেহেরপুর পৌর গেস্ট হাউজ, হোটেল অনাবিল, সোহাগ গেস্ট হাউজ, হোটেল ফিন টাওয়ার, হোটেল নাইট বিলাস, হোটেল শাহজাদী, হোটেল আটলান্টিকা, হোটেল প্রিন্স, হোটেল মিতা প্রভৃতি আবাসিক হোটেল রয়েছে।   

কোথায় খাবেন

চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর হাইওয়ের কাছে গালিব রেস্টুরেন্ট, ক্যাফে ইন, দাওয়াত রেস্টুরেন্ট, ইসলামিয়া হোটেল, ফিন ফুড রেস্টুরেন্ট ও লা ভোগ সহ বেশকিছু রেস্টুরেন্ট রয়েছে। মেহেরপুরের জনপ্রিয় খাবারের মধ্যে অবশ্যই সাবিত্রী ও রসকদম্ব মিষ্টির স্বাদ নিয়ে দেখবেন।

মেহেরপুর জেলার দর্শনীয় স্থান

মেহেরপুরের অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির, আমদহ গ্রামের স্থাপত্য, আমঝুপি নীলকুঠি, মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্স, নীলকুঠি ও ডিসি ইকোপার্ক অন্যতম।

ফিচার ইমেজ: নাদিম হোসাইন

ভ্রমণ সংক্রান্ত যে কোন তথ্য ও আপডেট জানতে ফলো করুন আমাদের ফেসবুক পেইজ এবং জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে

ম্যাপে ভাটপাড়া নীলকুঠি

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।