আলেকজান্ডার ক্যাসেল (Alexander Castle) ময়মনসিংহ শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত একটি প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা। ১৮৭৯ সালে তৎকালীন মুক্তাগাছার মহারাজা সূর্যকান্ত আচার্য জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আলেকজান্ডারের সম্পতি রক্ষার্থে এই প্রাসাদটি নির্মাণ করেছিলেন। সুদূর চীন থেকে আসা কারিগর দিয়ে কাঠ ও লোহার অপূর্ব সমন্বয়ে দৃষ্টিনন্দন এই প্রাসাদটি নির্মাণ করা হয়। প্রাসাদ তৈরীতে অত্যাধিক লোহার ব্যবহারের কারণে স্থানীয়দের কাছে এটি “লোহার কুঠি” নামে পরিচিতি পায়। সুন্দর শিল্পকর্ম ও নান্দনিকতায় পূর্ণ এই কুঠির প্রধান ফটকের সামনে দুইটি মার্বেল পাথরের মূর্তি এবং চারদিকে কয়েকটি নারীর ভাস্কর্য রয়েছে। দ্বিতল ভবনের ছাদে অভ্র ও চুমকি ব্যবহার করে প্রাসাদের ভিতরে ঠাণ্ডা রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। প্রাসাদের পিছনেই রয়েছে বিশালাকার পুকুর, ফুলের বাগান ও একটি কৃত্রিম হ্রদ।

আলেকজান্ডার ক্যাসেল লর্ড কার্জন, দেশবন্ধু চিত্ত রঞ্জন দাশ, নওয়াব স্যার সলিমুল্লাহ এবং কামাল পাশার মতো বিখ্যাত ব্যক্তিবর্গের পদধূলিতে ধন্য। ১৯২৬ সালে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ময়মনসিংহ সফরের সময় এখানে কিছুদিন অতিবাহিত করেন। বর্তমানে এই কুঠিটি ময়মনসিংহ টিচার্স ট্রেনিং কলেজের গ্রন্থাগার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। আলেকজান্ডার ক্যাসেলের পিছনের গেইট দিয়ে বের হলে চোখে পড়ে ব্রহ্মপুত্র নদ, সার্কিট হাউজ এবং জয়নুল আবেদিন পার্ক।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে এনা, আলম এশিয়া, শামীম এন্টারপ্রাইজ, শৌখিন কিংবা নিরাপদ পরিবহনের বাসে করে ৩২০ টাকা ভাড়ায় ময়মনসিংহ যেতে পারবেন। ঢাকা থেকে ময়মনসিংহ যেতে আড়াই থেকে তিন ঘণ্টা সময় লাগে।

ঢাকা থেকে ট্রেনে ময়মনসিংহ ভ্রমণ করতে চাইলে তিস্তা এক্সপ্রেস (সকাল ৭ঃ৩০), মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস (দুপুর ০১ঃ১৫), যমুনা এক্সপ্রেস (বিকেল ০৪ঃ৪৫), ব্রহ্মপুত্র (সন্ধ্যা ০৬ঃ১৫) এবং হাওর এক্সপ্রেস (রাত ১০ঃ১৫) এইসব ট্রেনের যে কোনটায় আপনার সময় ও পছন্দমত ট্রেনে সরাসরি ময়মনসিংহ যেতে পারবেন। শ্রেণীভেদে ভাড়া ১২০ থেকে ৪৮৩ টাকা। যেতে সময় লাগবে ৩ থেকে ৪ ঘন্টা।

ময়মনসিংহ শহরের যেকোন প্রান্ত থেকে রিকশা বা অটো রিকশা নিয়ে সহজেই আলেকজান্ডার ক্যাসেল আসতে পারবেন।

কোথায় থাকবেন

ময়মনসিংহ শহরে অবস্থিত ভাল মানের আবাসিক হোটেলের মধ্যে হোটেল আমির ইন্টারন্যাশনাল, সিলভার ক্যাসেল, হোটেল হেরা, হোটেল লা ম্যারিয়ান, নাজমা বোর্ডিং, নিরালা রেস্ট হাউজ, ঈশাঁ খা এবং হোটেল আসাদ অন্যতম।

কোথায় খাবেন

আলেকজান্ডার ক্যাসেলের কাছে কৃষ্ণা কেবিন, খন্দকার রেস্তোরা, ময়মনসিংহ বিরিয়ানি হাউজ, হোটেল রসনা বিলাস, সারিন্দা রেস্টুরেন্ট ও আভাস্তি রেস্টুরেন্ট সহ বেশকিছু খাবারের হোটেল আছে।

ময়মনসিংহের অন্যান্য দর্শনীয় স্থান

ময়মনসিংহের অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সন্তোষপুর রাবার বাগান, শশী লজ, মুক্তাগাছা জমিদার বাড়ী, শিল্পাচার্য জয়নাল আবেদিন পার্ক ও ময়না দ্বীপ উল্লেখযোগ্য।

ফিচার ইমেজ: ফারুখ আহমেদ ভূঁইয়া

ভ্রমণ সংক্রান্ত যে কোন তথ্য ও আপডেট জানতে ফলো করুন আমাদের ফেসবুক পেইজ এবং জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে

ম্যাপে আলেকজান্ডার ক্যাসেল

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।