সিলেট (Sylhet) বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বে অবস্থিত একটি সমৃদ্ধ জেলা। ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর সিলেট জনপদ পর্যটকদের কাছে অনেক জনপ্রিয় একটি স্থান। হযরত শাহ জালাল (র:) স্মৃতিধন্য সিলেটে আছে উপমহাদেশে সর্বপ্রথম প্রতিষ্ঠিত মালনীছড়া চা বাগান, জাফলং, সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান, বিছনাকান্দি, রাতারগুল জলাবন, লালাখাল, হাকালুকি হাওর সহ বেশকিছু দর্শনীয় স্থান। এছাড়াও হযরত শাহজালাল (র:) ও শাহপরাণ (র:) এর মাজার আগত দর্শনার্থীদের মনে পবিত্রতার পরশ বুলিয়ে দেয়। শুধু ভ্রমণ নয়, প্রতিদিন হাজারো প্রয়োজনে অনেকেই ঢাকা হতে সিলেটের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। ভ্রমণ গাইডের আজকের আয়োজনে চলুন জেনে নেয়া যাক ঢাকা হতে সিলেট যাওয়ার উপায়, খরচ এবং প্রয়োজনীয় ভ্রমণ পরামর্শ।

ঢাকা থেকে সিলেট যাবার উপায়

রাজধানী ঢাকা (Dhaka) থেকে বাস, ট্রেন এবং বিমানে সিলেট আসা যায়। সড়ক পথে ঢাকা হতে সিলেট এর দূরত্ব ২৪৩ কিলোমিটার ও রেল পথে সিলেটের দূরত্ব ২৩৫ কিলোমিটার।

ঢাকা থেকে সিলেট বাস

রাজধানী ঢাকার সায়েদাবাদ, গাবতলী, মহাখালী, আব্দুল্লাহপুর, ফকিরাপুল ও আরামবাগ থেকে ঢাকা টু সিলেট রুটে বিভিন্ন পরিবহন এর এসি, নন-এসি বাস নিয়মিত চলাচল করে। বাসে ঢাকা থেকে সিলেট যেতে সময় লাগবে ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা। ঢাকা থেকে সিলেট বাস ভাড়া এন এসি ৫৫০ থীক ৫৭০ টাকা এবং এসি বাস ভাড়া ১২০০ থেকে ১৪০০ টাকা।

বাসের ধরনভাড়া 
নন-এসি বাস৫৫০-৫৭০ টাকা  
এসি বাস১,২০০-১,৪০০ টাকা 

ঢাকা থেকে সিলেট গামী এসি, নন-এসি বাসের মধ্যে রয়েছে এনা, হানিফ এন্টারপ্রাইজ, গ্রীন লাইন, শ্যামলী পরিবহন, লন্ডন এক্সপ্রেস সহ আরও কিছু পরিবহন সার্ভিস।

ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেন

ঢাকা থেকে ট্রেনে সিলেট যেতে চাইলে কমলাপুর অথবা বিমান বন্দর রেলওয়ে স্টেশন থেকে আন্তঃনগর পারাবত এক্সপ্রেস, জয়ন্তিকা, কালনী এক্সপ্রেস ও উপবন এক্সপ্রেস এ যাত্রা করতে পারেন। ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেন ভাড়া ৩২০ টাকা থেকে ১০৯৯ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

ট্রেনের নাম ছাড়ার সময় পৌছায়সাপ্তাহিক বন্ধ 
পারাবত এক্সপ্রেসসকাল ০৬ঃ৩০দুপুর ০১ঃ০০ মঙ্গলবার 
জয়ন্তিকাবেলা ১১ঃ১৫ সন্ধ্যা ০৭ঃ০০ মঙ্গলবার 
কালনী এক্সপ্রেসদুপুর ০২ঃ৫৫রাত ০৯ঃ৩০ শুক্রবার
উপবন এক্সপ্রেসরাত ১০ঃ০০ভোর ০৫ঃ০০বুধবার

শ্রেণীভেদে ঢাকা টু সিলেট আন্তঃনগর ট্রেনের টিকেটের মূল্য

ক্লাস ভাড়া 
এসি বার্থ  ১,০৯৯ টাকা 
এসি সিট ৭৩৬ টাকা 
প্রথম শ্রেণী ৪৮৯ টাকা 
স্নিগ্ধা ৬১০ টাকা 
শোভন চেয়ার৩২০ টাকা 

ট্রেন সম্পর্কিত তথ্যের জন্য যোগাযোগঃ
কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন
ফোনঃ ০২-৯৩৫৮৬৩৪
মোবাইলঃ ০১৭১১-৬৯১৬১২
ওয়েবসাইটঃ www.railway.gov.bd

ঢাকা থেকে সিলেট বিমান

ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, নভো এয়ার ও ইউ এস বাংলা এয়ারলাইন্স  নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনা করে থাকে। বিমানে করে সিলেট পৌছাতে সময় লাগবে ১ ঘণ্টা। ঢাকা থেকে সিলেট বিমান ভাড়া ৩,৩০০ থেকে ১৩৬০০ পর্যন্ত হয়ে থাকে।

ঢাকা টু সিলেট বিমান টিকেটের মূল্য

বিমান সংস্থা সর্বনিন্ম ভাড়া সর্বোচ্চ ভাড়া 
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স৩,৩০০ টাকা ১৩,৬০৩ টাকা 
নভো এয়ার৩,৬১৩ টাকা ৩,৬৯৯ টাকা 
ইউ এস বাংলা এয়ারলাইন্স৩,৬৩০ টাকা ৭,৭৯০ টাকা 

বিমান ভাড়া সব সময় ভ্রমণের তারিখ অনুযায়ী পরিবর্তিত হয়। ভ্রমণ তারিখের নূন্যতম মাসখানেক আগে বিমানের টিকেট কাটলে সাধারণত ভাড়া কিছুটা কমে। আবার ভ্রমণের তারিখের খুব কাছাকাছি সময়ে টিকেট কাটলে অনেকক্ষেত্রে টিকেটের স্বাভাবিক মূল্যের চেয়ে দ্বিগুণ বা তিনগুণ অর্থ ব্যয় করতে হয়।

প্রত্যেক ইকোনমি ক্লাসের যাত্রী ২০ কেজি পরিমাণ চেক কৃত এবং ৭ কেজি কেবিন লাগেজ হিসাবে মালামাল বহন করতে পারবেন। আর বিজনেস ক্লাসের যাত্রীগণ বহন করতে পারবেন ৩০ কেজি এবং ৭ কেজি মালামাল। নির্ধারিত পরিমাণের চাইতে বেশী মালামাল পরিবহন করতে চাইলে সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্সের নিয়মানুসারে অতিরিক্ত ফি প্রদান করতে হবে।

ভ্রমণ সংক্রান্ত যে কোন তথ্য ও আপডেট জানতে ফলো করুন আমাদের ফেসবুক পেইজ এবং জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।