দিন শেষে প্রতিটি মানুষই তার আবাস্থলে ফিরে আসে বিশ্রাম ও নিরাপদে থাকার জন্য। তেমনি হুট-হাট প্রয়োজনে, ব্যবসায়িক কাজে কিংবা একা কোথাও ঘুরতে গেলে নিরাপদে রাত্রি যাপনের জন্য অনেক ক্ষেত্রে হোটেলকে বেছে নিতে হয়। প্রত্যেকেই তার নিজের চাহিদা ও আর্থিক সামর্থ্য অনুযায়ী হোটেল ঠিক করেন। অনেক সময় হোটেলে ওঠার পর আমাদের বিভিন্ন রকম অপ্রত্যাশিত ঘটনার মুখোমুখি হতে হয়। এসব ঘটনার আমাদের মন-মানসিকতাকে বিষন্ন ও বিপর্যস্ত করে তোলে। আর তাই একা একা ভ্রমণের ক্ষেত্রে হোটেলে রাত্রিযাপন করতে হলে নিরাপত্তার খাতিরে সচেতন থেকে ছোটখাট অনেক বিষয়ে চোখ কান খোলা রাখতে হয়। সামান্য বিষয়ের উপর সচেতনতা আপনাকে অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার হাত থেকে বাঁচিয়ে দেবে।

নিরাপত্তাকে গুরুত্ব দিন

আপনাকে যখন একা হোটেলে রাত্রিযাপন করতে হবে তখন অবশ্যই নিরাপত্তাকে বিশেষ গুরুত্ব প্রদানকারী হোটেলের খোঁজ করুন। জানতে চেষ্টা করুন আপনার হোটেলের নিরাপত্তাকর্মীরা সর্বদা তৎপর রয়েছে কিনা। দামী হোটেল নয় বরং নিরাপত্তাকে গুরুত্ব দিন নয়তো আপনি মুখোমুখি হতে পারেন অযাচিত কোন ঘটনার।

প্রথম ফ্লোর বা নিচতলায় কক্ষ ঠিক করবেন না

এটা স্বাভাবিক একটা বেপার যদি হোটেলে কোন ধরনের সন্ত্রাসী আক্রমণ হয় তবে ১ম ফ্লোর বা নিচতলা সবার আগে আক্রান্ত হবে। কারণ নিচ তলা আগমন এবং প্রস্থানের জন্য সবচেয়ে সহজ ও সুবিধাজনক। তাই নিরাপত্তার প্রশ্নে নিচতলার কক্ষ এড়িয়ে চলাই উচিত।

খুব বেশি উপরের কক্ষ ঠিক করবেন না

খুব উঁচুতে রুম/কক্ষ ঠিক করবেন না। কারণ কোন অবাঞ্ছিত কারণে আপনি চিৎকার করে কারো মনোযোগ আকর্ষন করতে চাইলে কেউ আপনার চিৎকার শুনতে পাবে না। তাই থাকার ক্ষেত্রে খুব বেশি উপরের ফ্লোর নির্বাচন না করাই ভাল।

ডাবল বেড বা দুই বিছানার কক্ষ ঠিক করুন

নিরাপত্তার বেপারে যদি আপনি নিশ্চিন্ত হতে না পারেন তবে বাড়তি সতর্কতা হিসাবে দুই বিছানার কক্ষ ভাড়া নিতে পারেন। এতে কেউ আপনার সম্পর্কে খোঁজখবর নিলে আপনার সাথে সঙ্গী আছে ভেবে বিভ্রান্ত হবে।

হোটেল কতৃপক্ষকে আপনার কক্ষ নম্বর গোপন রাখতে বলুন

যখন কোন প্রয়োজনে আপনি হোটেল থেকে বাইরে বের হবেন তখন হোটেল ম্যানেজারকে চাবি দেওয়ার সময় আশেপাশে অপরিচিত কেউ থাকলে নীচু স্বরে রুমের নাম্বার বলুন যেন অন্য কেউ শুনতে না পারে। আর অবশ্যই হোটেল ম্যানেজারকে বলে রাখুন যেন আপনার কক্ষ নম্বরের কথা গোপন রাখে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারে সচেতন হোন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যামে লোকেশান ট্যাগ থেকে বিরত থাকুন। কোথায়, কোন হোটেলে আছেন এসব তথ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করলে দুষ্কৃতিকারীরা সেই সুযোগ নিতে পারে।

বাইরে হোটেলের নাম উচ্চারণ করবেন না

হোটেলে বাইরে অপ্রয়োজনে অপরিচিত কাউকে হোটেলের নাম বলা থেকে বিরত থাকুন। এমনি কি কোন যানবাহনে হোটেলে ফিরতে গেলে হোটেলের নাম গোপন করার সুবিধার্থে হোটেলের কাছে অন্য কোন স্থানের কাছে নেমে কিছু সময় পর পায়ে হেটে হোটেলে আসতে পারেন।

কেউ আপনাকে অনুসরণ করলে হোটেল কক্ষে ঢুকবেন না

হোটেলে ঢোকার পর নিজের কক্ষের সামনে যাওয়ার সময় যদি মনে হয় কেউ আপনাকে অনুসরণ করছে তবে নিজ কক্ষে প্রবেশ না করে রিসিপশনের দিকে চলে যান। আর অবশ্যই খেয়াল রাখবেন অনুসরণকারী যেন সন্দেহ না করে আপনি তার উদ্দেশ্য বুঝতে পেরেছেন।

আপনার জিনিসপত্র নিজ দায়িত্বে গচ্ছিত রাখুন

হোটেলের নিরাপত্তাকর্মী রুম পরিষ্কার করতে আসলে খেয়াল রাখুন। সেই সাথে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস আপনার নিজের তত্ত্বাবধানে রাখুন। আর আপনার কাছে কেমন গুরুত্বপূর্ণ বা দামি জিনিস রয়েছে তা যে সহজে কেউ বুঝতে না পারে।

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।