করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে আগামী কিছুদিন কোথাও ভ্রমণ থেকে বিরত থাকুন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন ও সচেতন থাকুন। করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত সকল তথ্য জানতে এখানে ক্লিক করুন

ঢাকা বেনাপোল রুটে বিরতিহীন ট্রেন সার্ভিস বেনাপোল এক্সপ্রেস (Benapole Express)। সপ্তাহে ৬ দিন যাত্রী নিয়ে চলাচল করে এই ট্রেন। বেনাপোল এক্সপ্রেস ( ট্রেন নাম্বার ৭৯৫/৭৯৬ ) ১২টি কোচের ৮৯৬ যাত্রী ধারণক্ষমতা সম্পন্ন। বিরতিহীন এই ট্রেন সার্ভিসে ঢাকা থেকে বেনাপোল যেতে সময় লাগবে মাত্র আট ঘন্টা। ভারতগামী পর্যটকদের জন্যে খুবই সহজ হবে বেনাপোল দিয়ে ভারত যাওয়া। যাত্রীরা ঢাকা থেকে রাতে রওনা দিয়ে সকালে বেনাপোল পৌঁছে যেতে পারবেন।

সময়সূচী

ঢাকা থেকে রাত ১১ঃ১৫ মিনিটে বেনাপোল ছেড়ে যাবে এবং সকাল ৮ঃ ২০ মিনিটে বেনাপোল পৌঁছবে। বেনাপোল থেকে দুপুর ১২ঃ৪৫ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে এবং রাত ৮ঃ৪০ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছবে।

ট্রেন রুট (ঢাকা থেকে বেনাপোল)

স্টেশনসময়
ঢাকারাত ১১ঃ১৫ মিনিট (যাত্রা শুরু)
বিমান বন্দররাত ১১ঃ৪৮
ঈশ্বরদীভোর ৪ঃ২৫
চুয়াডাঙ্গাভোর ৫ঃ৩৮
দর্শনাসকাল ৫ঃ৫৯
যশোরসকাল ৭ঃ২৫
ঝিকরগাছাসকাল ৭ঃ৪৮
বেনাপোলসকাল ৮ঃ২০

ট্রেন রুট (বেনাপোল থেকে ঢাকা)

স্টেশনসময়
বেনাপোলদুপুর ১২ঃ৪৫ (যাত্রা শুরু)
ঝিকরগাছাদুপুর ১ঃ১৬
যশোরদুপুর ১ঃ৫৫
দর্শনাবিকেল ৩ঃ০০
চুয়াডাংগাবিকেল ৩ঃ২০
ঈশ্বরদীবিকেল ৪ঃ৩৫
ঢাকারাত ৮ঃ৪০

বেনাপোল থেকে ঢাকা আসার সময় যশোরে পৌঁছে ১০মিনিটের বিরতি দিবে যাত্রী উঠানো এবং ইঞ্জিন ঘুরানোর জন্যে। আবার ঈশ্বরদী এসে ১৫ মিনিটের বিরতি থাকবে ট্রেনের চালক ও অপরেশনাল কর্মীদের বদলের জন্যে। বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঢাকার কমলাপুর স্টেশনে পৌঁছার আগে ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশনে যাত্রী নামানোর জন্যে কিছুক্ষণ দাঁড়াবে।

সাপ্তাহিক বন্ধ : ঢাকা থেকে বেনাপোল বৃহস্পতিবার বন্ধ এবং বেনাপোল হতে ঢাকা বুধবার সাপ্তাহিক বন্ধ থাকবে।

টিকেট মূল্য

ঢাকা টু বেনাপোল এর সময় এসি বার্থ থাকবে আবার বেনাপোল টু ঢাকার ক্ষেত্রে এসি বার্থ এসি কেবিন হিসেবে ব্যবহার হবে। ঢাকা, যশোর ও বেনাপোলের ভাড়া নিম্নরূপ-

স্টেশনশোভন চেয়ারএসি চেয়ার (স্নিগ্ধা)এসি বার্থ
ঢাকা – বেনাপোল৪৮৫ টাকা৯৩২ টাকা১৭২৪ টাকা
ঢাকা – চুয়াডাঙ্গা৩৯০ টাকা৭৪৮ টাকা১৩৯০ টাকা
ঢাকা – যশোর৪৫৫ টাকা৮৭৪ টাকানাই
স্টেশনশোভন চেয়ারএসি চেয়ার (স্নিগ্ধা)এসি কেবিন
বেনাপোল – ঢাকা৫৩৪ টাকা৯৩২ টাকা১১১৬ টাকা
বেনাপোল – চুয়াডাঙ্গা১৩৫ টাকা২৫৯ টাকা৫৪১ টাকা
যশোর – ঢাকা৪৫৫ টাকা৮৭৪ টাকা১০৪৭ টাকা

আসন বিন্যাস

সর্বমোট ১২ টি কোচ থাকবে এই ট্রেনে। যাত্রী ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৮৯৬ জন। কোচ গুলোর মধ্যে –

  • এসি চেয়ার – ১ টি (গ)
  • এসি কেবিন – ১ টি (খ)
  • শোভন চেয়ার – ৭ টি (ঘ, চ, ট)
  • পাওয়ার কার+নামাজ ঘর+শোভন চেয়ার কোচ – ১টি (ঙ)
  • গার্ড ব্রেক+ডাইনিং কার+শোভন চেয়ার কোচ – ২ টি (ক, ঠ)

বিশেষ আকর্ষণ

  • আধুনিক সুবিধা আছে এই ট্রেনে।
  • ট্রেনটি একটি ‘ক’ শ্রেণির আন্তনগর ট্রেন
  • ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানী করা কোচ।
  • আধুনিক অটোমেটিক এয়ার ব্রেক সিস্টেম।
  • আছে ডিজিটাল ডিসপ্লে। 
  • নিরাপদ স্লাইডিং ডোর।
  • আধুনিক ও মানসম্মত চেয়ার ও বার্থ।
  • টিভি, ওয়ার ফাই এবং মোবাইল চার্জের ব্যবস্থা।
  • আধুনিক ডাইনিং সুবিধা সহ খাবার গাড়ী।
  • রেলওয়ের নিজস্ব ক্যাটারিং সার্ভিস
  • অজুখানা সহ নামাজ ঘর।
  • আধুনিক পরিবেশ বান্ধব বায়ো-টয়লেট।

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।