কক্সবাজার এক্সপ্রেস (Cox’s Bazar Express) ট্রেন বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের অন্তর্গত একটি বিরতিহীন আন্তঃনগর ট্রেন যা ২০২৩ সালের ১ ডিসেম্বর থেকে ঢাকা থেকে কক্সবাজার রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত নিয়মিত চলাচল করছে।। ট্রেনটি ঢাকা – কক্সবাজার রুটে সপ্তাহে ৬ দিন যাত্রী নিয়ে চলাচল করবে। মাত্র ৮ ঘন্টা ৫০ মিনিটে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে কক্সবাজার রুটে প্রতিদিন ৫৫১ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিবে। কক্সবাজার এক্সপ্রেস ট্রেনটি কক্সবাজার ভ্রমণকে করবে হবে আরও সহজ, আরামদায়ক ও সাশ্রয়ী।

কক্সবাজার এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী

ঢাকা থেকে রাত ১০ টা ৩০ মিনিটে যাত্রা শুরু করে বিমানবন্দর এবং চট্টগ্রাম স্টেশনে যাত্রা বিরতি দিয়ে সকাল ৭ টা ২০ মিনিটে কক্সবাজারে পৌঁছাবে। পরবর্তীতে দুপুর ১২ টা ৩০ মিনিটে একই ট্রেন ঢাকার উদ্দেশ্যে কক্সবাজার ছেড়ে যাবে এবং পৌঁছাবে রাত ৯ টা ১০ মিনিটে । ফিরতি পথেও চট্টগ্রাম ও ঢাকা বিমানবন্দরে যাত্রাবিরতি করবে। এই ২ স্টেশনে বিরতি ছাড়া বাকি সময় ট্রেনটি বিরতিহীন চলাচল করবে। সাপ্তাহিক ছুটি থাকবে মঙ্গলবার। 

প্রারম্ভিক স্টেশনযাত্রা শুরুগন্তব্যযাত্রা শেষ
ঢাকারাত ১০ঃ৩০কক্সবাজারসকাল ৭ঃ২০
কক্সবাজারদুপুর ১২ঃ৩০ঢাকারাত ৯ঃ৩০

কক্সবাজার এক্সপ্রেস টিকেট মূল্য

ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে কক্সবাজার এর মোট দূরত্ব ৫৫১ কিলোমিটার। আবার চট্টগ্রাম স্টেশন থেকে কক্সবাজারের প্রকৃত দূরত্ব ১৫০ দশমিক ৮৭ কিলোমিটার। রেলওয়ের নতুন নিয়ম অনুযায়ী ১০০ মিটারের বেশি দৈর্ঘ্যের সেতুর জন্য অতিরিক্ত ভাড়া ও দূরত্ব (পয়েন্ট চার্জ) নির্ধারণ করছে। এ কারণে চট্টগ্রাম- কক্সবাজার রুটে সাতটি সেতুর জন্য বাড়তি ৫৪ কিলোমিটারের ভাড়া আরোপ করা হয়েছে।

ট্রেন রুটশোভন চেয়ারস্নিগ্ধাএসি বার্থএসি সিট
ঢাকা থেকে কক্সবাজার৬৯৫ টাকা১,৩২৫ টাকা২,৩৮০ টাকা
কক্সবাজার থেকে ঢাকা৬৯৫ টাকা১,৩২৫ টাকা১,৫৯০ টাকা
চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার২৫০ টাকা৪৭০ টাকা

অনলাইন থেকে টিকিট বুকিং দিলে উল্লেখিত ভাড়ার সাথে ২০ টাকা সার্ভিস চার্জ যুক্ত হবে এবং AC_B/F_BERTH এই শ্রেণীর টিকিটের সাথে ৫০ টাকা বেডিং চার্জ যুক্ত হবে।

আসন বিন্যাস

প্রাথমিকভাবে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের তূর্ণা নিশীথার বগি দিয়ে চালানো হবে ঢাকা-কক্সবাজারের ট্রেন। পাশাপাশি তূর্ণা নিশীথায় বিকল্প রেক দেওয়া হবে। ট্রেনে দু’টি খাবার বগি, একটি পাওয়ার কার, তিনটি এসি কেবিন, পাঁচটি এসি চেয়ার, ছয়টি শোভন চেয়ার এবং একটি নন-এসি ফার্স্ট সিট বগি থাকবে। ঢাকা থেকে যাত্রার সময় আসন সংখ্যা হবে ৭৯৭। ফিরতি পথে আসন হবে ৭৩৭।

টিকেট কাটার উপায়

টিকেট পাওয়া যাবে অন্য সকল ট্রেনের মতো কাউন্টারে ও অনলাইনে। অনলাইনে টিকেট পাওয়া যাবে https://eticket.railway.gov.bd/ এই ওয়েবসাইট থেকে।

ভ্রমণ সংক্রান্ত যে কোন তথ্য ও আপডেট জানতে ফলো করুন আমাদের ফেসবুক পেইজ এবং জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।