পর্যটকদের কাছে এতদিন কক্সবাজার থেকে সরাসরি সেন্টমার্টিন দ্বীপ যাওয়া কোন মাধ্যম ছিলো না। সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে আগামী ৩০ জানুয়ারি ২০২০ হতে কক্সবাজার-সেন্টমার্টিন-কক্সবাজার নৌপথে পর্যটকবাহী বিলাসবহুল এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস জাহাজ চালু হচ্ছে। ফলে এখন থেকে সেন্টমার্টিন দ্বীপে যাওয়ার জন্য পর্যটকদের আর টেকনাফ যেতে হবে না। এমভি কর্ণফুলী জাহাজ ২৬ জানুয়ারি কক্সবাজার নৌবন্দরে এসে পৌঁছাবে এবং ৩০ জানুয়ারী হতে কক্সবাজারের উত্তর নুনিয়াছটা বিআইডব্লিউটিএ ঘাট থেকে চলাচল করবে।

ফারহান এক্সপ্রেস ট্যুরিজমের সার্বিক সহায়তায় কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স লিমিটেড পর্যটকবাহী এই জাহাজটি পরিচালনা করবে। এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস জাহাজটি এর আগে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী শিপইয়ার্ডে বিআইডব্লিওটিসির উপকূলীয় জাহাজ বহরের লিজেন্ডারি নৌযান হিসাবে ব্যবহৃত হত। যা এমভি আলাউদ্দিন আহমেদ নামে পরিচিত ছিল।

কর্ণফুলী শিপইয়ার্ড এমভি আলাউদ্দিন আহমেদ জাহাজটি অধিগ্রহণ করে নকশায় ব্যপক পরিবর্তনের মাধ্যমে নিজস্ব ডকইয়ার্ডে নতুনভাবে চলাচলের উপযোগী করে তোলে। এরপর জাহাজটি এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস নামে কর্ণফুলী নদী থেকে পতেঙ্গা সমুদ্র মোহনা পর্যন্ত ট্রায়াল সম্পন্ন করে।

আমেরিকার বিখ্যাত কামিন্স ব্র্যান্ডের দুইটি মেইন প্রাপালেশন ইঞ্জিনে চালিত এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস জাহাজটি প্রতি ঘণ্টায় প্রায় ১২ নটিক্যাল মাইল গতিতে ছুটতে পারে। ৫৫ মিটার দৈর্ঘ্য ও ১১ মিটার প্রস্থের এই জাহাজটিতে আছে ১৭টি ভিআইপি কেবিন, ৩ ক্যাটাগরির প্রায় ৫০০ আসন, কনফারেন্স রুম, ডাইনিং স্পেস এবং সী ভিউ ব্যালকনি।

৩০ জানুয়ারী ২০২০ উদ্বোধনের পর এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেস জাহাজের ভাড়ার তালিকা ও সময়সূচি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

সম্ভাব্য ভাড়ার তালিকা (আপ ডাউন):
ইকোনমি ক্লাস চেয়ার: ২০০০/-
বিজবেস ক্লাস চেয়ার: ২৫০০/-
ইকোনমি (২য় শ্রেনী কেবিন) : ১২০০০/-
ভি আই পি কেবিন: ১৫০০০/-
(প্রতিটি কেবিন ২ জনের জন্য প্রযোজ্য, অতিরিক্ত প্রতি ভ্রমণকারীর জন্য আলাদা টিকেট কেটে নিতে হবে)

সময়সুচী:
কক্সবাজার বি আই ডব্লিও টি এ ঘাট থেকে ছাড়বে সকাল: ৭.০০ মিনিটে। সেন্টমার্টিন থেকে ছাড়বে বিকাল: ৩.০০ মিনিটে। কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন পৌঁছাতে সময় লাগবে প্রায় ৫ ঘন্টা।

ফিচার ইমেজ: লঞ্চ ভেসেল ফাইন্ডার্স বাংলাদেশ

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।