গতানুগতিক ভ্রমণ হতে ক্যাম্পিংয়ের প্রস্তুতি একটু আলাদা। এখানে নিজের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন জিনিসের পাশাপাশি ক্যাম্প করার জন্যেও আলাদা কিছু জিনিস নিতে হয়। কোথাও ঘুরতে গেলে অতি প্রয়োজনীয় বা স্বল্প প্রয়োজনীয় এমন অনেক কিছুই ব্যাগে ভরে ফেলি। ভ্রমণ স্থানে সরাসরি যানবাহনে যাওয়ার সুযোগ থাকায় প্রায় ক্ষেত্রেই ভারি ব্যাগ নিজেকে বহন করতে হয় না। কিন্তু যদি ক্যাম্পিংয়ের সাইট হয় কোন দূর্গম এলাকায় তবে ভারি ব্যাগ কাধে নিয়ে মাইলের পর মাইল হাঁটার বেপারটা মাথায় রেখে এমন সব জিনিস সাথে নিন যেগুলো না হলেই নয়। কিংবা এক জিনিসের বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে এমন জিনিস সাথে বহন করুন। ভ্রমণ গাইডের আজকের আয়োজনে চলুন জেনে নেই ক্যাম্পিংয়ে গেলে আপনাকে অবশ্যই সাথে রাখতে হবে এমন কিছু জিনিস সম্পর্কে।

তাঁবু: ক্যাম্পিংয়ের জন্য তাঁবু অন্যতম অনুষঙ্গ। বাজারে বিভিন্ন ধরণের ছোট বড় তাঁবু পাওয়া যায়। পানি নিরোধক, টেকসই, হালকা এবং সহজে বহন করা যায় এমন তাঁবুকে বেছে নিন। আর তাঁবু ছোট নাকি বড় কিনবেন সেটা আপনার প্রয়োজনীয়তা ও পছন্দের উপর নির্ভর করবে।

লাইট: আপনার তাঁবুর ভেতরটা আলোকিত রাখতে পছন্দমতো রিচার্জেবল লাইট নিতে পারেন। আজকাল বাজারে ছোট কিন্তু অধিক আলোর বিভিন্ন ধরণের লাইট পাওয়া যায়।

ব্যাগপ্যাক: আপনার দরকারি জিনিসপত্র বহনের সুবিধার্থে নিজের উচ্চতা ও বহন ক্ষমতার উপর ভিত্তি করে পছন্দ মত আকার এবং প্রয়োজনীয় ওজন বহনে সক্ষম ব্যাকপ্যাক নিতে পারেন।

স্লিপিং ব্যাগ/ম্যাট: বাজারে বিভিন্ন ধরণ ও মানের স্লিপিং ব্যাগ পাওয়া যায়। ক্যাম্পিংয়ে নির্বিগ্নে রাত কাটানোর জন্য এটি দারুণ কাজে দেয়। আপনার সুবিধামত যেকোন একটি নিয়ে নিন।

কাপড়: ক্যাম্পিংয়ে যাওয়ার জন্য অন্তত দুই সেট বাড়তি কাপড় সাথে নিন। আচমকা বৃষ্টি বা অন্য যেকোন কারণে কাপড় পানিতে ভিজে যাবার আশঙ্কা থাকলে পলিথিনে মুড়িয়ে নিন।

পলিথিন/পলিপ্যাক: ক্যাম্পিংয়ে ভেজা কাপড়, অপচনশীল ময়লা ইত্যাদি বহনের জন্য সাথে পলি-ব্যাগ রাখুন।

জুতা: ভাল গ্রিপ আছে এমন জুতা নির্বাচন করুন। চাইলে ক্যাম্পে আরামে চলাফেরা করার জন্য চপ্পল জাতীয় হালকা জুতাও সঙ্গে রাখতে পারেন। গ্রিপের জন্য পিয়ারসন বা পেগাসাসের রাবারের জুতাগুলো বেশ কাজে দেয়।

পোষাক নির্বাচন: হালকা ও আরামদায়ক পোশাক পরিধান করুন। এক্ষেত্রে ঢিলেঢালা প্যান্ট, টি শার্ট বা ফতুয়া সবচেয়ে ভাল কম্বিনেশন। আর আপনি যদি অন্য কোন পোশাক পড়ে কমফোর্টেবল ফীল করেন তবে সেটিই সাথে নিন।

আরও পড়ুনঃ বাংলাদেশের জনপ্রিয় ক্যাম্পিং প্লেস

খাবার: রাতে বার-বি-কিউ কিংবা রান্না করে খেতে চাইলে রান্নার প্রয়োজনীয় সব কিছু ব্যাগে ভরে নিন। আর অবশ্যই কিছু শুকনো খাবার সাথে রাখুন। চটজলদি এনার্জি দেয় এমন খাবার (চকলেট, পিনাটবার) রাখা সবচেয়ে ভাল। চিড়া-গুড়, ইনস্ট্যান্ট কফির প্যাকেট এ জাতীয় খাবারগুলোও ক্যাম্পিংয়ে বেশ কাজে দেয়।

পানি বোতল: পরিবহণ ও আপনার যেমন প্রয়োজন তার উপর নির্ভর করে পানির বোতল নিতে পারেন। অন্তত দুইটি রিফিলযোগ্য পানি পূর্ণ বোতল ব্যাগের দুই পাশে রেখে দিলে মোটেও গায়ে লাগবে না। আর পানি ফুরিয়ে গেলে সুযোগ পাওয়া মাত্রই আবার পানি ভরে নিন।

পাওয়ার ব্যাংক: ক্যাম্পিংয়ে সাথে থাকা স্মার্টফোন, ক্যামেরা, স্মার্টওয়াচ বা অন্য যেকোন ইলেকট্রনিক ডিভাইস চার্জ দেয়ার জন্য আপনার চাহিদা অনুযায়ী পাওয়ার ব্যাংক সাথে নিন। সংকটময় মুহুর্তে আপনার ডিভাইসকে সচল রাখতে পাওয়ার ব্যাংক অনেক কাজে দিবে।

টর্চ: যদিও আমাদের স্মার্টফোনের ক্যামেরার ফ্ল্যাশলাইটকে টর্চ হিসাবে ব্যাবহার করা যায়। তবু ক্যাম্পিংয়ের সময় আলাদা ছোট একটি টর্চ সাথে রাখলে ভীষণ উপকার পাবেন।

ফার্স্ট এইড কিট: ফার্স্ট এইড কিট খুবই জরুরী এবং কাজের জিনিস। তবে এই জিনিসটা সবার কাছে পৃথক পৃথক রাখার দরকার হয় না। সমষ্টিগত ভাবে সাথে নিলেই হল কিন্তু অবশ্যই দেখে নিন প্রয়োজনীয় সবকিছুই সেখানে আছে কিনা।

হ্যামক: নিজের পছন্দমত যেকোন স্থানে আরাম করে দোল খাবার জন্য হ্যামকের তুলনা নেই। হালকা, সহজে গুটিয়ে রাখা যায় এমন একটি হ্যামক সাথে নিয়ে নিন।

ক্যাম্পিং করতে গেলে আরও যেসকল জিনিস ক্যাম্পিংয়ের স্থানভেদে সঙ্গে রাখতে পারেন গামছা, ব্যাক্তিগত ঔষধ, দেয়াশলাই বক্স, মশা নিরোধক ক্রিম, খাবার স্যালাইন, টুথপেস্ট, ব্রাশ, টিস্যু পেপার, সুইস আর্মি নাইফ, ছুড়ি, দড়ি ইত্যাদি। আপনার প্রয়োজনে যা কিছুই সাথে নিচ্ছেন সেসকল জিনিস নির্বাচনের ক্ষেত্রে ব্যাগের ওজনের দিকে দৃষ্টি রাখুন। আর যদি আপনার ক্যাম্পের স্থানে সরাসরি যানবাহনে যাওয়ার সুযোগ থাকে তবে স্বাধীনভাবে আপনি ব্যাগগুছাতে পারেন। প্রয়োজনীয় সব কিছুর তালিকা করে সে অনুযায়ী ব্যাগে গুছিয়ে নিন। এতে কোন কিছু বাদ যাওয়ার আশঙ্কা কমে যাবে।

ফিচার ইমেজ: rei.com

শেয়ার করুন সবার সাথে

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।