ইন্দোনেশিয়ার অষ্টম বৃহত্তম শহর বাটাম দ্বীপের স্থানীয় নাম কোটামাড্যা। বালি এবং জাকার্তার পর বাটাম দ্বীপ (Batam Island) হচ্ছে ইন্দোনেশিয়ার তৃতীয় ব্যস্ততম প্রবেশ পথ। প্রায় ১১ লক্ষ জনসংখ্যার এই দ্বীপটির আয়তন ১ হাজার ৫৯৫ বর্গকিলোমিটার। এখানে ৬ টি দ্বীপে বিভক্ত ১৪ টি জেলা আছে। নৌপথে সিঙ্গাপুর থেকে বাটাম দ্বীপের দূরত্ব মাত্র ২০ কিলোমিটার। আর বাটামের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তের দূরত্ব ২৫ কিলোমিটার। ফলে ট্যাক্সি, মিনিবাস কিংবা বাসে চড়ে একদিনেই দ্বীপের পুরোটা ঘুরে দেখা সম্ভব।

বাটামের দক্ষিণ উপকূলে বেশ কয়েকটি ঝুলন্ত সেতু রয়েছে। সব সেতুগুলোকে একত্রে বেয়ারল্যাং ব্রিজ বলা হয়। আর বেয়ারল্যাং ব্রিজ এলাকা এখানে আগত পর্যটকদের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয়। সবুজের সমারোহ, সাগর সৈকত এবং ঝুলন্ত সেতুর সৌন্দর্য যেন মিলেমিশে একাকার। এই সৈকতে সূর্যাস্তেত দৃশ্য চোখে লেগে থাকবে অনেকদিন।

এছাড়া বাটাম দ্বীপে ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা জাব্যাল আরাফা মসজিদ, মিনিয়েচার পার্ক, মহাবিহার দুতা বৌদ্ধমন্দির, মসজিদ রায়া, টুয়া প্যাং কং বৌদ্ধবিহার এবং নাগোয়া এলাকা ঘুরে দেখতে পারেন।

কিভাবে যাবেন

সিঙ্গাপুর থেকে ফেরিতে করে সবচেয়ে সহজ এবং স্বল্প অর্থ ব্যয়ে বাটাম দ্বীপ যাওয়া যায়। তাই বাংলাদেশ থেকে সরাসরি বাটাম দ্বীপে যেতে চাইলে সিঙ্গাপুর হয়ে চলাচল করতে পারেন। সিঙ্গাপুরের হারবারফ্রন্ট থেকে বাটাম দ্বীপের ফেরী ছাড়ে। সিঙ্গাপুরের বিমানবন্দর হতে এমআরটি, বাস এবং ট্যাক্সিতে করে হারবারফ্রন্ট স্টেশনে আসতে পারবেন। ফেরিতে জনপ্রতি যাওয়া আসার খরচ পড়বে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। তবে এজন্য আপনাকে সিঙ্গাপুরের ডাবল এন্ট্রি ভিসা নিতে হবে। ইমিগ্রেশনে বাংলাদেশ ফেরার রিটার্ণ এয়ার টিকেট, হোটেল বুকিং স্লিপ, ডলার সহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য কাগজপত্র দেখাতে হবে। ঢাকা-সিঙ্গাপুর-ঢাকা রুটে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স, টাইগার এয়ার এবং বাংলাদেশ বিমান নিয়মিতভাবে সিঙ্গাপুরগামী ফ্লাইট পরিচালনা করে আসছে।

কোথায় থাকবেন

বাটাম দ্বীপে অসংখ্য হোটেল ও রিসোর্ট রয়েছে। হোটেল ভাড়া সিঙ্গাপুরের তুলনায় প্রায় অর্ধেক। এখানে অল্প অর্থ ব্যয়ে পাঁচ তারকা হোটেলে থাকতে পারবেন। তবে অনলাইনে ট্রিপ অ্যাডভাইজার কিংবা যেকোন বিশ্বস্থ ওয়েবসাইট থেকে অগ্রিম হোটেল বুক করে রাখাই নিরাপদ।

কোথায় খাবেন

বাটামের খাবারের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় বেংকং এলাকার গোল্ডেন প্রন সি ফুড রেস্তোরাঁ। বৈচিত্র্যময় খাবার খাওয়ার পাশাপাশি এই রেস্তোরাঁর কাছে অবস্থিত মিনিয়েচার পার্ক এলাকা ঘুরে দেখার সুযোগ মিস করা ঠিক হবে না।

কেনাকাটা

বাটাম দ্বীপ কেনাকাটার জন্য পর্যটকদের কাছে এটি যেন এক স্বর্গরাজ্য। শুল্কমুক্ত হওয়ায় সবকিছুর দাম এখানে তুলনামূলক কম। তাই অনেকেই সিঙ্গাপুর ভ্রমণে আসলেও কেনাকাটার জন্য বাটাম ঘুরতে যান। এখানে কেনাকাটার জন্য মেগা মল শপিং সেন্টার, কেপরি মল, নাগোয়া হিল মল, হারবার বে মল, প্লাজা টপ, ডায়মন্ড সিটি ও প্যানবিল মলের মতো অনেক বিপণিবিতান রয়েছে।

ফিচার ইমেজ: Indonesia Holidays

ভ্রমণ গাইড টিম সব সময় চেষ্টা করছে আপনাদের কাছে হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করতে। যদি কোন তথ্যগত ভুল কিংবা স্থান সম্পর্কে আপনার কোন পরামর্শ থাকে মন্তব্যের ঘরে জানান অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ পাতায় যোগাযোগ করুন।
দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।
সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।